সুনীপ দাশ সৌরভ, চকরিয়া :
কক্সবাজারের চকরিয়ার বরইতলী ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়তলী গ্রামের কৃষক আমির হোসেনের স্ত্রী আয়েশা বেগম (৪০) দূরারোগ্য ব্যাধি পাকস্থলীর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনবছর ধরে বাড়ির বারান্দার এক কোনায় মৃত্যুশয্যায় রয়েছেন। দিনরাত তাঁর কান্নার শব্দে ভারি হয়ে উঠে পরিবেশ। কৃষক স্বামীও টাকার অভাবে স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। তার ওপর ছয় সদস্যের পরিবারের দুই বেলা খাবার ও ভরণ-পোষণের যোগান দিতে গিয়ে পরিবারের কর্তা দিশাহারা।

এই অবস্থায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘ চকরিয়া উপজেলা শাখার সদস্য আনিসুল ইসলাম ফারুকীর নজরে আসে ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার বিষয়টি। বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী আয়েশার চিকিৎসায় লাখ টাকার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। এসব বিষয় অবগত হওয়ার পর আয়েশার চিকিৎসা করাতে শুভসংঘের আহবানে তহবিল সংগ্রহ করা হয়। গত চারদিনে শুভসংঘের তহবিলে সাড়া দেন ৪২ জন ব্যক্তি। তন্মধ্যে ডাক্তার, পুলিশ কর্মকর্তা, প্রবাসী, শিক্ষক, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতা থেকে শুরু করে শুভসংঘের সদস্যরাও রয়েছেন।

শুভসংঘের গঠিত তহবিলে চারদিন ধরে স্বেচ্ছায় জমা পড়ে নগদ ৬৭ হাজার ৫৩০ টাকা। সেই টাকা আজ শুক্রবার বিকেলে দুর্গম পাহাড়তলী গ্রামের বাড়িতে গিয়ে হস্তান্তর করা হয়। চিকিৎসা করানোর জন্য এই টাকা হাতে পেয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশা এবং কৃষক স্বামী আমির হোসেনসহ পরিবার সদস্যরা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। তারা দুই হাত তুলে দোয়া করেন শুভসংঘের কর্মীসহ যারা এই অর্থসহায়তা দিয়েছেন তাদের জন্য।

তহবিলের টাকা হস্তাস্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন কালের কণ্ঠ শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ও কালের কণ্ঠ’র স্থানীয় প্রতিনিধি
ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া শাখার উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য জিয়া উদ্দিন, চকরিয়ার সভাপতি আবুল মাসরুর, সাংগঠনিক সম্পাদক এএইচএম রায়হান, দপ্তর সম্পাদক আপন শর্মা, নির্বাহী সদস্য আজিজুল হক, আনিসুল ইসলাম ফারুকী, সুনীপ দাশ সৌরভ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা মির্জা জয়নাল প্রমূখ। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ চকরিয়া শাখার উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য জিয়া উদ্দিন ও সভাপতি আবুল মাসরুর জানান, আগামীকাল শনিবার সকালেই চট্টগ্রামের একটি প্রাইভেট কিনিকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসা শুরু হবে। শুভসংঘ কর্তৃক গঠিত তহবিলের টাকা পাওয়ার পর চিকিৎসার সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন করা হয়েছে।’

শুভসংঘের সদস্য আনিসুল ইসলাম ফারুকী বলেন, ‘তিনবছর আগে আয়েশার পেটে একটি টিউমার হয়। সেই টিউমার অপারেশনের পর পাকস্থলীতে ক্যান্সার দেখা দেয়। টাকার অভাবে সেই ক্যান্সারের ক্ষত-যন্ত্রণা নিয়ে গত একবছর ধরে বাড়িতেই পার করেছেন সময়। বিষয়টি আমার নজরে আসে প্রথমবারের মতো।’

যারা শুভসংঘের তহবিলে চিকিৎসা সহায়তা পাঠিয়েছেন তারা হলেন ডাক্তার আজিজুল হক, পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আমিন, পুলিশ সদস্য ইশতিয়াক আদর, প্রবাসী যথাক্রমে সালাহউদ্দিন হিরু, মোহাম্মদ ইউসুফ, মোহাম্মদ হোসাইন, আছিয়া-কাশেম ট্রাষ্টের কর্ণধার হুমায়ন ইসহাক, মিজবাহ উদ্দিন, মো. আজিজ ও আবুল কাশেম নাহিয়ান, শিক্ষক সুজন কান্তি নাথ, উপজেলা যুবলীগ সম্পাদক কাউছার উদ্দিন কছির, যুবলীগ নেতা আজিজুল হক ও শফিউল আলম। উপজেলা ছাত্রলীগ সম্পাদক আকিত হোসেন সজিব। এছাড়াও সদরুল মামুন, মোহাম্মদ এরফান, পলাশ
সুশীল, সেলিম মাহমুদ, সাইফুল ইসলাম, আনসারুল ইসলাম, মোহাম্মদ মুস্তাহিদ, সাহাদাত হোছাইন, নুরুল আজিম ডায়মন, মোহাম্মদ জাহিদ, তপন দাশ, রাইসুল আলম, সুমন দাশ, আবু কাউসার, মোহাম্মদ সোহেল, ব্যবসায়ী কুমার দত্ত। শুভসংঘের পক্ষ থেকে অর্থ সহায়তা দেন যথাক্রমে ছোটন কান্তি নাথ, জিয়া উদ্দিন, আদনান রামীম, এএইচএম রায়হান, আপন শর্মা, নিশান দাশ। এছাড়াও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নারীসহ পাঁচজন শুভাকাঙ্খি অর্থসহায়তা দেন ক্যান্সার আক্রান্ত আয়েশার চিকিৎসায়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •