বিশেষ প্রতিবেদক:
কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ দিয়ে লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদের দুই মেয়াদ শেষ হয়েছে। নতুন করে কউক চেয়ারম্যান নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এই নিয়ে কক্সবাজারে বেশ আলোচনা চলছে। কক্সবাজারের মতো এই গুরুত্বপূর্ণ জেলার এই গুরুত্বপূর্ণ পদে নতুন করে চেয়ারম্যান নিয়োগে মন্ত্রণালয়েরও তোড়জোড় চলছে বলে জানা গেছে। নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে ইতোমধ্যে কয়েকজনের নাম আলোচনায় এসেছে। এর মধ্যে মানুষের মুখে মুখে আলোচিত হচ্ছে পরিচ্ছন্ন রাজনীতির মডেল খ্যাত আওয়ামী লীগের নিবেদিতপ্রাণ মানুষ, জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা। তবে পাশাপাশি বর্তমান চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদও আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন।

জানা গেছে, কউক চেয়ারম্যান পদ মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় নতুন চেয়ারম্যান কে হচ্ছেন- তা নিয়ে কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও সরাসরি বেশ আলোচনা চলছে। এর মধ্যে নতুনদের মধ্যে যে কয়েকজনকে নিয়ে আলোচনা হচ্ছে তার মধ্যে এড. সিরাজুল মোস্তফা শীর্ষ সারিতেই রয়েছে। কেননা পরিচ্ছন্ন, প্রতিবাদী ও যোগ্য ব্যক্তি হিসেবে এড. সিরাজুল মোস্তফার এই পদের সবচেয়ে যোগ্য- এমনটি বলছেন সকলে। একই সাথে বর্তমান চেয়ারম্যান হিসেবে অভিজ্ঞতা বিবেচনায় লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদও যোগ্যতা তালিকায় থাকবে। তিনি দুই মেয়াদে দায়িত্ব পালন করাতেই পুন:বার তাঁকে অধিষ্টিত করা নিয়ে সংশয় জেগেছে। তারপরও তৃতীয় মেয়াদের তিনি দায়িত্ব পাওয়ার বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। যদি তিনি তৃতীয় মেয়াদে বসতে না পারেন তবে এড. সিরাজুল মোস্তফাই হতে পারে একমাত্র বিকল্প!

সচেতন মহল বলছেন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নতুন চেয়ারম্যান নিয়ে যে কয়েকজন আলোচনায় এসেছে তার মধ্যে শীর্ষ যোগ্য ব্যক্তি এড. সিরাজুল মোস্তফা। তিনি একাধারে একজন ঝানু রাজনীতিবিদ, প্রাজ্ঞ আইনজীবি, মেধাবী ও বিচক্ষণ ব্যক্তি। কক্সবাজারবাসীসহ জনমানুষের অধিকারের কথা বলতে তিনি সব সময় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ থাকেন। ইতোমধ্যে কক্সবাজারের হোটেল শৈবাল রক্ষা, মাতারবাড়ি কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কেন্দ্রিক সাধারণ মানুষের অধিকারের কথা দৃঢ়ভাবে বলে তিনি বেশ সুনাম কুড়িয়েছেন। যোগ্যতা ও মানবিকতার মিশেলে দীর্ঘ রাজনীতির মাঠের পরীক্ষিত নেতা হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করেছেন এড. সিরাজুল মোস্তফা। যা অন্যান্য আলোচিত কারো নেই। সার্বিক দিক বিবেচনায় তিনি চেয়ারম্যান হলে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তপক্ষে একটি নব দিগন্ত উন্মোচিত হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে!

এড. সিরাজুল মোস্তফা একজন আপাদামস্তক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যক্তি। নিজের পুরোটা জীবন বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন আওয়ামী লীগের জন্য নিবেদিত করেছেন। স্কুলজীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেছিলেন। কিশোর বয়সেই দেশ স্বাধীনে অংশ নিয়েছিলেন। ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সম্মুখ সারিতেই। সেই যাত্রাপথে এগিয়ে এসে যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার আগেই প্রধানমন্ত্রীর গুডবুকের তালিকায় স্থান নিয়েছিলেন। এখনো প্রধানমন্ত্রীর আস্থাভাজন হিসেবে অটুট রয়েছেন। অকপটে সোজা-সরল কথা বলা এবং সত্যবাদিতা ও প্রতিবাদী ব্যক্তি হিসেবে সর্বজনবিদিত হয়েছেন এড. সিরাজুল মোস্তফা।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, এড. সিরাজুল মোস্তফাকে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান করা হলে কক্সবাজারের জন্য একটি নতুন দিগন্তের সূচনা হবে। তাঁর যোগ্যতার গুণে কক্সবাজারের উন্নয়নের এক মাইলফলক তৈরি হবে। উন্নয়নের নতুন চিত্রে কক্সবাজার হবে একটি মডেল। তাই তাঁকে চেয়ারম্যান করে আগামীর সুন্দর কক্সবাজার গড়ার উদ্যোগ নেবেন প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা- এমনটি প্রত্যাশা সকলের।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •