উখিয়া সংবাদদাতা:
উখিয়া উপজেলার চারটি খাল খননের কাজ শেষ না হতেই বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ফলে ক্ষতির সম্মুখিন হবে সরকারের দেয়া বিশাল বাজেট। দূর্ভোগে পড়বেন এলাকাবাসি।
সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী খাল, মধুরছড়া খাল থাইংখালী খাল ও পালংখালী খালসমুহে এডিবির অর্থায়নে এলজিইডি খনন কাজ করছে। এর মধ্যে কাজ শুরু হতে না হতে কয়েকটি খালের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।
এমনই একটি চিত্র উপজেলার ধুরছড়া খাল থেকে বালুখালী খাল পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার খাল খনন কর্মসূচীর কাজ সমাপ্ত না হওয়ার আগেই পানিতে ভেসে গেল সৌন্দর্য বর্ধনে স্থাপন করা কথিত টেকসই মানের ব্লক গুলো। ক্ষত-বিক্ষত হয়ে পড়েছে বিভিন্ন পয়েন্টে। দেখা দিয়েছে একাধিক স্থানে ফাঁটল।
স্থানীয়দের দাবি, খাল খনন কাজে ব্যাপক দুর্নীতি হচ্ছে। যা দেখার কেউ নেই। খালের দুই পাশে সিসি ব্লক বসানোর কথা থাকলেও রোহিঙ্গা শ্রমিক দিয়ে শুধু নিম্নমানের বালি ও সিমেন্ট দিয়ে মাঝে মাঝে কয়েকটি রড দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। যা স্থানীয় ও খালের দুই পাশের মানুষের মধ্যে এক ধরণের চাপা ক্ষোভ তৈরি করছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, খালের দুই পাশের সৌন্দর্য বর্ধনশীল করার জন্য গাছ রোপন ও ব্লকসহ টেকসইকরণ প্রকল্পটি নড়বড় ভাবে রোহিঙ্গা শ্রমিকদের দ্বারা দায়সারা ভাবে কাজ করে যাচ্ছে ঠিকাদার।
স্থানীয় চেয়ারম্যান এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানিয়েছেন, ঠিকাদার খাল খননের নামে যেভাবে সরকারে টাকা হরিলুট করছে তা প্রশ্নবিদ্ধ। কারণ খনন কাজ শেষ না হতেই বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন ধরেছে। তিনি তা সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলকে নজর দেয়ার দাবি জানিয়েছেন।
খাল খনন কর্মসূচী বাস্তবায়নে সরকার এডিবি’র অর্থায়নে ১৬ কোটি ব্যয় বরাদ্দ দিয়েছিল।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •