আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
করোনার ধাক্কা সামলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে চীনের অর্থনীতি
গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপর থেকেই দেশটিতে ভয়াবহ বিপর্যয় শুরু হয়। অর্থনীতিতে বড় ধরনের ধস নেমে আসে।

কিন্তু গত কয়েক মাসের প্রচেষ্টায় চীন করোনার ধাক্কা সামলে উঠতে সক্ষম হয়েছে। এমনকি দেশটির অর্থনীতিও চাঙ্গা হতে শুরু করেছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, সাম্প্রতিক সময়ে ৩ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে চীন। বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অর্থনীতির এই দেশটিতে চলতি বছরের প্রথম তিন মাস অর্থনীতি নিম্নমুখী ছিল।

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন ধরে লকডাউন চলায় এর প্রভাব পড়েছিল দেশটির অর্থনীতিতে। তবে এপ্রিল থেকে জুন মাসে জিডিপিতে প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য করা গেছে।

বিশেষজ্ঞরা যা ধারণা করেছিলেন তার চেয়েও চীনের অর্থনৈতিক অবস্থা আরও ভালো হতে শুরু করেছে। করোনার প্রকোপ বাড়তে থাকায় বাধ্য হয়েই কড়াকড়ি আরোপ করেছিল চীন।

ফলে বেশ কয়েক মাস ধরে দেশটির বিভিন্ন ফ্যাক্টরি এবং ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। তবে করোনার প্রকোপ যখন কমতে শুরু করল তখন দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল করতে ধীরে ধীরে দেশজুড়ে কড়াকড়ি শিথিল করা হয়। এমনকি সরকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ট্যাক্স নেওয়াও বন্ধ রেখেছে।

লকডাউন শেষে চীনের অর্থনীতি নিয়ে যতটা ভাবা হয়েছিল তার চেয়েও দেশটির অর্থনীতি শক্তিশালী হয়ে উঠছে। তবে একটি ক্ষেত্র এখনও সেভাবে চাঙ্গা হতে পারেনি। দেশটির খুচরা বাজারের ক্ষেত্রে তুলনামূলক কম অগ্রগতি হয়েছে।

চীনে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৮৩ হাজার ৬১২ জন। এর মধ্যে মারা গেছে ৪ হাজার ৬৪৩ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ৭৮ হাজার ৭১৯ জন। অর্থাৎ দেশটিতে আক্রান্তদের মধ্যে অধিকাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •