মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

বিজিবি’র চট্টগ্রাম দক্ষিণ-পূর্ব রিজিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমকে রাষ্ট্রীয় ও সামরিক মর্যাদায় চট্টগ্রাম সেনানিবাসের কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। শুক্রবার ১০ জুলাই সকাল ১১টার দিকে সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। বিষয়টি ১৫ আনসার ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার ও লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমের ঘনিষ্ঠজন এসএম আজিম উদ্দিন সিবিএন-কে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, জানাজার পূর্বে সামরিক কায়দায় সালামী ও জাতীয় পতাকা দিয়ে লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমের কফিন আচ্ছাদিত করা হয়। জানাজায় লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমের কন্যা অহনা, পুত্র আরিয়ান ও সহধর্মিণী শামা সহ স্বজনদের বুকফাটা আর্তনাদে আকাশ বাতাস কেঁপে উঠে। সৃষ্টি হয় এক করুণ দৃশ্যের। মেধাবী, অসাধারণ দেশপ্রেমিক, দুঃসাহসি ও চৌকস এ সামরিক অফিসারের অকালে চলে যাওয়াকে কেউ যেন মেনে নিতে পারছেন না।

জানাজায় অংশ নেয়া ১৫ আনসার ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার ও কক্সবাজার শহরের উত্তর রুমালিয়ার ছরার সন্তান এসএম আজিম উদ্দিন আরো জানান, জানাজায় উর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা অংশ নেন। জানাজার পূর্বে লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমের কফিনে সকল সামরিক রেওয়াজ, রীতি ও মর্যাদায় অভিষিক্ত করা হয়।

প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিজিবি’র চট্টগ্রাম দক্ষিণ-পূর্ব রিজিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিম (৫০) গত ৯ জুলাই বৃহস্পতিবার সকাল ৮.১৫ মিনিটের দিকে মারা যান। তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথমে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তাঁর অবস্থার অবনতি ঘটলে পরে তাঁকে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিমের বাড়ি চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ উপজেলায়। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্যা আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান। লে. কর্নেল আনোয়ারুল আজিম চট্টগ্রামের হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজের এইসএসসি ১৯৮৭ ব্যাচের মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •