আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় ১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দ. আফ্রিকা। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়েই ভয়াবহ সংকট তৈরি করে রেখেছে। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনে প্রাদুর্ভাব হওয়া এই ভাইরাস ইতোমধ্যেই বিশ্বের ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।

ইতোমধ্যেই সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ২০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত প্রায় সাত মাসে ভাইরাসটি সাড়ে ৫ লাখ মানুষের প্রাণ কেড়েছে।

করোনার প্রকোপ ঠেকাতে বিভিন্ন দেশ লকডাউন ও কঠোর বিধি-নিষেধ জারি করেছে। কিন্তু এতে বিপদ আরও বেড়েছে। বিভিন্ন দেশ আর্থিকভাবে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ফলে অনেক দেশই লকডাউন তুলে নিয়েছে আবার অনেকেই লকডাউন শিথিল করেছে। এরই মধ্যে ভয়ঙ্কর দিনের আশঙ্কায় প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

ফোর্বসের এক প্রতিবেদনে জানা হয়েছে যে, দক্ষিণ আফ্রিকার গাওতেং প্রদেশে ১৫ লাখ কবর খোঁড়া হচ্ছে। সেখানকার প্রশাসনের এমন উদ্যোগে ইতোমধ্যেই সমালোচনা শুরু হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার হট স্পট গাওতেং প্রদেশ। সেখানকার মেডিকেল কাউন্সিলের সদস্য ডা. বান্দিলে মাসুকু জানিয়েছেন, বাধ্য হয়েই তাদের এমন অস্বস্তিকর একটি সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। তবে অনেকেই বলছেন, প্রশাসন আসলে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে এমন নিন্দনীয় কাজ শুরু করেছে।

প্রেটোরিয়া এবং জোহানেসবার্গ গাওতেং প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত। জোহানেসবার্গ ওই অঞ্চলের রাজধানী। গাওতেং প্রদেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭১ হাজার ছাড়িয়েছে। দেশের মোট আক্রান্তের ৩৩ শতাংশ ওই প্রদেশের। দক্ষিণ আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত ২ লাখ ১৫ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে তিন হাজার ৬০২ জন মারা গেছে।

আগামী সপ্তাহের শেষ দিকের মধ্যেই গাওতেংয়ে করোনা রোগীদের জন্য ৫শ শয্যার একটি হাসপাতাল চালু হবে। সেখানে চলতি মাসের শেষের দিকে আরও ৫শ শয্যা যুক্ত করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •