নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজার সদরের পিএমখালীর মাছুয়াখালী বাজারপাড়ায় একই পরিবারের ৪ জনকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামী আবদুল মালেক (৪২) গ্রেফতার হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলািই) সন্ধ্যায় সদরের পিএমখালীর চেরাংঘাটা বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করে সদর থানা পুলিশ।

আবদুল মালেক পিএমখালী মাইজপাড়ার কবির আহমদের ছেলে এবং কক্সবাজার সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক।

গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মো: খায়রুজ্জামান।

গত ২৬ মার্চ রাত ১ টার দিকে মাছুয়াখালী বাজারপাড়ায় বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল কবিরের বসতবাড়ীতে ঢুকে ব্যাপক হামলা, ভাঙচুর ও হত্যাচেষ্টার ঘটনা ঘটে।

এতে নুরুল কবিরের ছেলে পিএমখালী কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলমসহ পরিবারের ৪ সদস্য গুরুতর আহত হয়। সন্ত্রাসীদের দায়ের কোপে নুরুল আলমের ডান কানের অংশ কেটে যায়। তাকেসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে এলাকাবাসী।

পরে এ ঘটনায় ভিকটিম নুরুল আলম বাদি হয়ে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-জিআর-২৯৬/২০২০। মামলায় আবদুল মালেকসহ ১১ জনকে এজাহারনামীয় আসামী করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা রয়েছে আরো ৩/৪ জন আসামী।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, আবদুল মালেক ২/৩টা সন্ত্রাসী গ্রুপ লালন করে। এলাকার প্রায় অপকর্মের সাথে তার সম্পৃক্ততা রয়েছে। ছাত্রলীগের সাবেক পদবী জাহির করে সাধারণ মানুষকে বিভিন্নভাবে হয়রানী করে আসছে আবদুল মালেক। ভয়ে এলাকাবাসী মুখ খোলতে সাহস করে না। তার গ্রেফতারের সংবাদে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরেছে পিএমখালীতে।

উল্লেখ্য, নুরুল কবির জেলা শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি, কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী হাবিবুর রহমানের সেজ ভাই।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •