কক্সবাজার নিউজ ডেস্ক :

চারজন মেধাবী তরুণ উদ্দোক্তার সমন্বয়ে জেলায় প্রথমবারের মতো আত্মপ্রকাশ করেছে ‘আউট এন্ড আউট গেজেট’ শীর্ষক একটি আধুনিক ও আকর্ষণীয় স্মার্ট গেজেটের অনলাইন স্টোর। যা কক্সবাজারের সচেতন ক্রেতা মহলে শুরুতেই ইতিবাচক সাড়া পেয়েছে বলে দাবী উদ্দোক্তাদের।

উদ্দোক্তাদের দাবী, নানান সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করে জেলাবাসীর নিকট ই-কমার্স সেবা পৌঁছে দেওয়া।

ক্রেতা চাইলে অনলাইন থেকে খু্ব সহজেই পণ্য ক্রয় করতে পারবে। আধুনিক এই সেবার সঙ্গে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটি যুক্ত করেছে অর্ডারকৃত পণ্য ফ্রী বাড়ি পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা যা নগরবাসীর মধ্যে একরকম ভিন্ন সাড়া ফেলেছে৷

ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য ক্রয় করে সন্তুষ্ট ক্রেতা। গ্রাহক মুনতাসির বিল্লাহ আলিফ বলেন, ‘আউট এন্ড আউট গেজেট’ কক্সবাজারের মধ্যে একদমই ভিন্ন পণ্য সরবরাহকারী একটি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান৷ তিনি বলেন, আমরা কক্সবাজারের তরুণরা দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন কুরিয়ার সেবার মাধ্যমে রাজধানী থেকে ভাল মানের স্মার্ট গেজেট ক্রয় করতাম। কিন্তু সেইসব মানের পণ্য আমাদের হাতে পৌছাতে কালক্ষেপণ হলেও স্থানীয় প্রতিষ্ঠানটির উদ্যোগে আমরা কয়েক ঘন্টার মধ্যে ভাল পণ্য হাতে পাচ্ছি এবং অতিরিক্ত ডেলিভারী চার্জও বহন করতে হচ্ছে না।

এদিকে শহরের টেকপাড়ার আরেক তরুণ আশিকুর রহমান বলেন, আমি প্রতিষ্ঠানটির সুনাম শুনে বিশ্বাস করতে কষ্ট হয়েছিল, নকল পণ্য ভেবে। যাচাই এর কৌতুহল থেকে একটি Wavefun Flex Pro অর্ডার করেছিলাম। প্রতিষ্ঠানটির ডেলিভারি সিস্টেম থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, আমি এক ঘন্টার মধ্যে পণ্য পেয়ে যাব। কিন্তু দেড় ঘন্টা পর আমার হাতে পণ্য বুঝিয়ে দেওয়া হল। পণ্যটি আমি হাতে পাওয়ার পর আমি বুঝতে পারি এই পণ্যটি আসল এবং আমি বিস্মিত হই। সচরাচর পণ্যটি অতীতে আমাদের শহরে সহজলভ্য ছিল না।

উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী কর্মকর্তা আহমদ ফরহাদ কক্সবাজার নিউজ কে জানান, আমরা সেবার মান উন্নত একরার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। গ্রাহকের সন্তুষ্টি আমাদের এগিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার। এই সময় তিনি প্রতিষ্ঠানটির সফলতায় দোয়া কামনা করেছেন এবং খুব দ্রুত সারাদেশে সেবা ছড়িয়ে দেওয়ার আশাবাদ প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, ডিজিটাল বাংলাদেশের পদচিহ্ন অনুসরণ করার লক্ষ্যে চার তরুণ উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন৷ ডিজিটাল কক্সবাজার বিনির্মাণে আরও সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে ওরা চারজন স্বপ্ন বুনেছে।
ক্রমানুসারে তাদের মধ্যে রয়েছে— খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ছাত্র মাহির তাজওয়ার তাশদীদ, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুটেক্স) ছাত্র হাসনাত জামিল অয়ন, বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজির (বিইউএফটি) ছাত্র শোভা হাসান এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র আহমদ ফরহাদ। কক্সবাজার নিউজ কে জানান তারা প্রত্যেকে এ জেলারই সন্তান। এ তরুণ যুবাদে সমাজের সচেতন মহল স্যোশাল মিডিয়ার বরাত দিয়ে স্বাগত জানিয়েছেন।

এসও/

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •