নিজস্ব প্রতিবেদক :

কক্সবাজারের রামু ও টেকনাফ নয়াপাড়া ক্যাম্পের অভিযানে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে ব্যাপক আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার ১৫ আনসার ব্যাটালিয়ন। ৪ জুলাই দিবাগত রাতে রামু উপজেলা প্রশাসনের সহযোগী বৌদ্ধ মন্দিরের নিরাপত্তার নিয়োজিত ১৫ আনসার ব্যাটালিয়নের বিশেষ ব্যাটালিয়ন আনসার ক্যাম্পের আনসার সদস্যবৃন্দ রামু থানার পুলিশসহ গোপন সূত্রের প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে পরিচালিত যৌথ অভিযানে মোট চারটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে। রামু থানার ওসি বিষয়টি তদন্তাধীন বলে জানিয়েছেন।

কোম্পানী কমান্ডার শাব্বির হোসেন সদস্যদের অস্ত্র উদ্ধার অভিযানের এতো সাফল্যের সংবাদ পাবার সাথে ক্যাম্প দুটো পরিদর্শন করে সদস্যদের অধিনায়কের পক্ষ থেকে নগদ অর্থ পুরস্কার প্রদান করেছেন। অস্ত্র মজুদকারী সন্ত্রাসীদের সকল তথ্য কাগজ পত্র চ‚ড়ান্ত মামলা রুজু প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে তারা আনুষ্ঠানিক ভাবে অত্র দপ্তরকে জানাবেন।

এদিকে ১৫ ব্যাটালিয়ন রামু জননিরাপত্তা ক্যাম্পের ৬ সদস্য অস্ত্র উদ্ধার উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয়। কোম্পানী কমান্ডার শাব্বির হোসেন ও ক্যাম্পের পিসি মনজুরকে রামু থানায় এই মামলার বিষয়টি মনিটরিং এর জন্য দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এবং অধিনায়কসহ ঊর্ধতন কর্মকর্তারা অতি দ্রুত অস্ত্র উদ্ধারে সফল ক্যাম্পগুলো পরিদর্শন করবেন।

এ সম্পর্কিত চুড়ান্ত তথ্য, পুলিশ ও ইউএনও রামু থানা থেকে সকল ডকুমেন্ট প্রাপ্তির পর চুড়ান্ত অস্ত্র উদ্ধার প্রতিবেদন সদর দপ্তরে প্রেরণ করা হবে। অপরদিকে ৪ জুলাই সকাল ৯ টার দিকে কোম্পানি সদর দপ্তর, নয়াপাড়া টেকনাফ শরনার্থী ক্যাম্পে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে এপিসি মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন এবং এপিসি মোহাম্মদ শহিদুল্লাহর নেতৃত্বে ১০ জনের একটি টহল দল রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরের আই ব্লকে অপারেশন চালিয়ে একটি কাটা বন্ধুক ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেন।

এব্যাপারে টেকনাফ থানায় লিখিত প্রতিবেদনসহ অস্ত্র ও গুলি জমা করা হয়েছে। পালিয়ে যাওয়া অস্ত্রধারী অপরাধীদের ধরার জন্য নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •