নিজস্ব প্রতিবেদক:
হোপ ফাউন্ডেশন ফর উইমেন এন্ড চিলড্রেন অব বাংলাদেশ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হোপ করোনা আইসোলেশন ও ট্রিটমেন্ট সেন্টার উদ্বোধন করা হয়েছে।
আজ বুধবার (১ জুলাই) সকালের ভার্চুয়াল কনফারেন্সের মাধ্যমে রামুর চেইন্দাস্থ এই করোনা আইসোলেশন সেন্টার  উদ্ভোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ আশরাফুল আফসার এর সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল কনফারেন্সে শুরুতেই হোপ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রেসিডেন্ট ডাঃ ইফতিখার মাহমুদ শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন।  এরপর হোপ করোনা আইসোলেশন সেন্টারের উপর বিস্তারিত উপস্থাপন করেন হোপ ফাউন্ডেশনের বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর, কে, এম, জাহিদুজ্জামান ।
উক্ত ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক  মুজিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাসুদুর রহমান মোল্লা, সিভিল সার্জন মোঃ মাহবুবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শাহজাহান আলী, রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা, রামু  উপজেলা স্বাস্থ্য ও  পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নোবেল কুমার বড়ুয়া, সিনিয়র সাংবাদিক তোফায়েল আহমেদ এবং কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের। এছাড়াও হোপ ফাউন্ডেশনের সিনিয়র কর্মকর্তাবৃন্দ কনফারেন্সে সরাসরি যোগদান করেন।
জেলা প্রশাসকসহ অতিথিবৃন্দ করোনা আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করায় হোপ ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানান।
জানা গেছে, উক্ত হোপ আইসোলেশন ও ট্রিটমেন্ট সেন্টারের মাধ্যমে রামুর তথা কক্সবাজার জেলার স্থানীয় করোনা রোগীদের প্রাথমিক ও মধ্যম টাইপের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হবে। এছাড়াও  উক্ত হোপ আইসোলেশন ও ট্রিটমেন্ট সেন্টারের মাধ্যমে আক্রান্ত গর্ভবতী মায়েদের নরমাল এবং সিজারিয়ান ডেলিভারি করানো হবে ।
উল্লেখ্য, আমেরিকা প্রবাসী ডা. ইফতিখার উদ্দিন মাহমুদ, এমডি (শিশু স্বাস্থ্য) এর অক্লান্ত পরিশ্রম ও মেধার মাধ্যমে কক্সবাজার জেলায় মাতৃমৃত্যু, শিশু মৃত্যুর হার কমানো এবং প্রসবজনিত ফিস্টুলা মুক্ত করার জন্যই বিভিন্ন স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ও তারই সার্বিক তত্ত্বাবধানে উক্ত আইসোলেশন সেন্টারটি পরিচালিত হবে।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •