লুৎফুর রহমান কাজল

 

রৌদ্রমাখা আষাঢ়ের সকাল। আজ কক্সবাজারের সবচেয়ে সফল রাজনীতিবিদ বিএনপি কেন্দ্রিয় স্থায়ী কমিটির বিপ্লবী সদস্য জনাব সালাউদ্দিন আহমদের ৫৮তম জন্মদিন ।শুভ জন্মদিন প্রিয় নেতা । কক্সবাজার জেলার কৃতি সন্তান হিসাবে অনেক রেকর্ড জনাব সালাউদ্দিন সাহেবের ঝুলিতে আছে । জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাকালিন কেন্দ্রিয় আহবায়ক কমিটির সদস্য , ছাত্রদলের সোনালী যুগের সময় কেন্দ্রিয় ভারপ্রাপ্তে সভাপতি, সফল আমলা ,৯১ সালের পরে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সহকারী একান্ত সচিব হিসাবে রাষ্ঠ্রীয় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থান । নিজ এলাকা চকরিয়ায় ব্যাপক অবকাঠামো উন্নয়ন । পেকুয়াকে উপজেলা প্রতিষ্ঠা । তিনি অনেক বার এমপি , কক্সবাজারে স্বাধীনতা পরবর্তী এক মাত্র মন্ত্রী । জনাব সালাউদ্দিন সাহেবে উল্লেখযোগ্য অবদানের মধ্যে কক্সবাজার পৌরসভাকে এ গ্রেড উন্নতি করন , মেরিন ড্রাইভ রোড নির্মাণ , টেকনাফ বন্দর , জাহাজ চলাচলের মাধ্যমে সেন্টমাটিনকে পর্যটন কেন্দ্র প্রতিষ্টা হোটেল মোটেল জোনে আন্তর্জাতিক মানের পাঁচ তারকা হোটেল করার জন্য উদোক্তাদের উৎসাহ প্রদান । প্রতিমন্ত্রী থাকাকালীন লবন চাষীদের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য লবণ আমদানী বন্ধ এবং লবণ জমির খাজনা মওকুফ করেছিলেন । বিএনপির কেন্দ্রিয় যুগ্ম মহাসচিব থাকাকালীন সারাদেশে সংগঠন পুনর্গঠনের দায়িত্ব পালন করেন । আওয়ামীলীগ সরকারের ভোটার বিহীন নির্বাচন বিরুদ্ধে আন্দোলন এবং দলীয় মুখপাত্র হিসাবে তাঁর সাহসী ভুমিকা সারাদেশে দলীয় নেতা কর্মীরা এখনো শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করেন । কক্সবাজার জেলার সন্তান হিসাবে বিএনপি সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের তিনিই একমাত্র উচ্চ মর্যাদাপূর্ণ রাজনৈতিক পদের অধিকারী । বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের কেন্দ্রীয় স্থায়ী কমিটির সবচেয়ে তরুন সদস্য ।ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের আইন বিভাগ থেকে এল এল এম পাশ করা মেধাবী ছাত্র জনাব সালাউদ্দিন আহমদ বরন্য আইনজীবি গণফোরাম সভাপতি ড কামাল হোসেনের জুনিয়ার আইনজীবি হিসাবে কাজ করেন ।রাস্ট্রিয় ষড়যন্ত্র মামলার শিকার হয়ে ভারতের শিলং শহরে দীর্ঘদিনের অবস্থান । নামাজ .পড়াশুনা .শরীরচর্চা ,দেশের খবরাখবর নিয়ে দিন পার করেন নেতা ।মহান রাব্বুল আলআমিন আল্লাহর কাছে প্রার্থনা আমাদের নেতা যেন সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে আমাদের মাঝে ফিরে আসেন । বড় ভাইয়ের প্রতি রইল শ্রদ্ধা শুভ কামনা ভালবাসা সব সময় । আমিন ।

জুন ৩০, ২০২০
নিরিবিলি ।

বি:দ্র: জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সোনালী যুগের সময়কাল ৮২ সাল থেকে ৯০ সাল পর্যন্ত । সেই সময় সারাদেশে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সংগঠন বেশ শক্তিশালী ছিলো । ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয় সহ সারাদেশের বেশীর ভাগ শিক্ষা প্রতিস্টানের নিবার্চিত ছাত্র সংসদ জাতীয়তাবাদী ছাত্র দলের দখলে ছিল । ৯১ স্বৈর শাসনের পতন এবং গনতন্ত্রের পুন প্রতিস্টার আন্দোলনের মৌলিক ইতিহাস যদি লিখা হয় তবে সবচেয়ে বেশী আপোসহীন ভুমিকা থাকবে দেশনেত্রী বেগম জিয়া এবং জাতীয়তাবাদী ছাত্র দল ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •