মুহিববুল্লাহ মুহিব, সিবিএন :

বিশ্ব মহামারীতে সংকটে পড়া হতদরিদ্র মানুষের জন্য ১০ টাকা কেজি ধরে চাল বিক্রির উদ্যোগ নেই বর্তমান সরকারের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু কক্সবাজারে এ চাল বিতরণে নানা অভিযোগ উঠলেও এবার খাদ্য গুদামে চাল গায়েবের ঘটনা ঘটছে। খাদ্য গুদাম থেকে নেয়া ৩০ কেজির চালের বস্তায় ৮ বা ৭ কেজি কম পাওয়ার অভিযোগ ডিলারদের।

অভিযোগে জানাযায়, গত বৃহস্পতিবার বিকেলে খাদ্য গুদাম থেকে ঘোনার পাড়ার ডিলার ইউসূফ বাবু ৫ হাজার কেজি বরাদ্দকৃত চাল নিয়ে যান। কিন্তু তার গোডাউনে নেয়ার পর ট্রাক থেকে নামিয়ে দেখে বস্তাগুলো অনেকটা খালি। তখন সে ওজন দিলে বেশকিছু বস্তায় অন্তত ৮ কেজি করে কম পাওয়া যায়। পরে দেখাযায় সর্বমোট ১৪০ কেজি চাল কম পায় সে। একইভাবে গতকাল শুক্রবার বিকেলে ৮ হাজার ৫ শ কেজি চাল নেন ইউসূফ বাবু সেখানেও কম পড়লে তাৎক্ষণিকভাবে সে চালগুলো নিয়ে সদর খাদ্য গুদামে ফেরত আনলে কর্মকর্তারা চালের বস্তাগুলো পাল্টে দেয়। এ ঘটনার পুরো ভিডিও চিত্র রয়েছে প্রতিবেদকের কাছে।

একই রকম অভিযোগ পাওয়া গেছে শহরের আরও ৭টি ডিলারের কাছে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নিয়োগকৃত ডিলার ইউসূফ বাবুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পর পর দুইবার চাল কম পেয়েছি। বিষয়টি সত্যি  দু:খজনক। ওনারা কম দিলে আমরা মানুষকে কি দিবো।

তবে এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সদর খাদ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ সালাউদ্দিন এ প্রতিবেদকের কাছে তার সম্পৃক্ততা নেই ও তিনি এবিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন। তবে প্রতিবেদকের ফোন কেটে দিয়ে বিভিন্ন ডিলার ও প্রভাবশালীদের দিয়ে প্রতিবেদককে নিউজ না করার জন্য বার্তা পাঠান।

এবিষয়ে জানতে জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আশরাফুল আফসারকে একাধিকবার ফোন করলেও রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

প্রসঙ্গত যে, একই অভিযোগে এরআগেও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর হাতে আটক হয়েছিলেন সদর খাদ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। তারপরও তিনি বহাল তবিয়েতে থেকে যান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •