মো. নুরুল করিম আরমান, লামা:

চিকিৎসক, সাংবাদিক ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের পর এবার বান্দরবানের লামা পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেযর মো. তাজুল ইসলামের স্ত্রী, ওয়ার্ড কাউন্সিলর, থানা পুলিশের সদস্য, এনজিও ব্র্যাকের স্টাফসহ ১০ ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পজেটিভ এসেছে, অর্থাৎ তাদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এ নিয়ে উপজেলায় মোট করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়লো ৩০ জনে। এর মধ্যে ১২জন সুস্থ হয়েছে বাড়ী ফিরেছেন। ১ জন আইশোলেশনে ও বাকীরা হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসাধীন আছেন। বুধবার সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক মোহাম্মদ রোবীন। তিনি জানান, লামা পৌরসভার কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন বাদশা, কুমারী পুলিশ ক্যাম্পের সদস্য মো. তুহিন, এনজিও ব্র্যাকের ম্যানেজার (স্বাস্থ্য) মো. জসিম উদ্দিন, পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. তাজুল ইসলামের স্ত্রী মোহসেনা, সাবেক মেয়র মো. আমির হোসেনের ছেলে মনির হোসেন, আজিজনগরের মিশন পাড়ার রীমা আক্তার, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাপান বড়ুয়ার বোন রুবি বড়–য়া, মেয়ে জয়িতা বড়–য়া ও ছেলে সজিব বড়–য়া ও স্থানীয় একরাম হোসেন নমুনা দেওয়ার পর পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। মঙ্গলবার দিনগত রাতে তাদের নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে করোনা পজেটিভ আসে। করোনা রিপোর্ট পজেটিভ হলেও বর্তমানে তারা মোটামুটি সুস্থ আছেন। ১৪দিন পর পরীক্ষার জন্য পূণরায় তার নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

এ বিষযে লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ- জান্নাত রুমি বলেন, প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমন এডাতে আক্রান্তদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইশোলেশন ও হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •