মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতালে নব নির্মিত ১০ বেডের পরিপূর্ণ অত্যাধুনিক ICU (ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট-Intencive care unit) এবং ৮ বেডের HDU (হাই ডিপেডন্সি ইউনিট-High dependency unit) কক্সবাজার জেলার চিকিৎসা জগতে মাইলফলক হয়ে থাকবে। জটিল রোগীদের চিকিৎসা দিতে আর খুব একটা চট্টগ্রাম, ঢাকা দৌঁড়াতে হবেনা।

২০ জুন শনিবার সকাল ১১ টায় জেলা সদর হাসপাতালে নব নির্মিত ICU এবং HDU প্রধান অতিথি হিসাবে উদ্বোধনের সময় কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল এ কথা বলেন। তিনি বলেন, এখন থেকে ICU এবং HDU এর প্রয়োজনীয়তা সম্পন্ন রোগীদের সেখানে রেখে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে। কক্সবাজার জেলাবাসীর বহু প্রতিক্ষীত নতুন স্থাপিত এ ২টি ইউনিট প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে ফিতা কেটে উদ্বোধন করে মোনাজাত করেন।

এরপর কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও সদর হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সাইমুম সরওয়ার কমল হাসপাতালের কনফারেন্স রুমে জেলার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিশিষ্টজনদের সাথে অনলাইন জুম কনফারেন্স যুক্ত হন। বিষয়টি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ও উপপরিচালক এবং উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সার্বিক সমন্বয়ক ডা. মোঃ মহিউদ্দিন সিবিএন-কে জানিয়েছেন।

উদ্বোধনের সময় অন্যান্যের মধ্যে, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. অনুপম বড়ুয়া, তত্বাবধায়ক ডা. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, UNHCR এর সিনিয়র অপারেশন অফিসার হিনাকো টকি, WHO এর প্রতিনিধি ডা. কাই প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে সভাপতিত্ব করবেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন। জুমে যুক্ত হন-কক্সবাজারের আরআরআরসি (যুগ্মসচিব) মোঃ মাহবুব আলম তালুকদার, কক্সবাজারের এসপি এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মাহবুবুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান, জেলা বিএমএ’র সভাপতি ডা. পুচনু ও সাধারণ সম্পাদক ডা. মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।

কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে স্থাপিত ১০বেডের পরিপূর্ণ অত্যাধুনিক ICU এবং ৮ বেডের HDU কাজে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত একটি সুত্র সিবিএন-কে জানিয়েছেন, জাতিসংঘের উদ্বাস্তু বিষয়ক হাই কমিশন (UNHCR)-৩৫ কোটি টাকারও অধিক ব্যয়ে অত্যাধুনিক বহুমুখী সুবিধা সম্বলিত এই ১৮ বেডের ICU এবং HDU নির্মাণ করেছে।

অত্যাধুনিক সুবিধা সম্বলিত ICU-HDU এর সকল চিকিৎসক, নার্স, মিডওয়াইফ, ওয়ার্ডবয়, স্বাস্থ্যকর্মী, ক্লিনার, এ্যাম্বুলেন্স সহ মাসিক সকল ব্যয়ভার UNHCR কর্তৃপক্ষ বহন করবেন। ইতিমধ্যে সকল জনবলও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ১৮বেডের ICU এবং HDU-তে ভেন্টিলেটর সার্ভিসের জন্য অক্সিজেন প্ল্যান্টও একইসাথে নির্মান করা হয়েছে। এছাড়া এ ICU-HDU তে মেডিকেল অক্সিজেন ভেন্টিলেটর এবং খোলা জায়গা থেকে স্বয়ংক্রিয় অক্সিজেন নিয়ে রোগীর শরীরে সরবরাহ করার জন্য মেডিকেল অক্সিজেন কনসেনটেইটরের ব্যবস্থাও রয়েছে।
সুপার ডা. মোঃ মহিউদ্দিন আরো জানান, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে আগে কোন ICU ছিলোনা। শুধুমাত্র ২ বেডের অসম্পূর্ণ HDU ছিলো।

কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চালু হতে যাওয়া ICU এবং HDU- তেই প্রথম ভেন্টিলেটর ও মেডিকেল অক্সিজেন কনসেনটেইটর সুবিধা থাকবে। যা জেলার কোন সরকারি বেসরকারি হাসপাতালে আগে ছিলোনা। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীর জন্য এই অক্সিজেন ভেন্টিলেটর সুবিধা জন্য খুব বেশী প্রয়োজন। জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ও উপ পরিচালক ডা. মো. মহিউদ্দিন জানান, জেলা পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালে এই প্রথম ICU এবং HDU ইউনিট চালু হচ্ছে। কক্সবাজার জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি সদর হাসপাতালে শনিবার থেকে ICU এবং HDU চালু হলে অক্সিজেন স্যাচুরেশন কমে যাওয়া করোনা আক্রান্ত রোগী আর খুব একটা চট্টগ্রাম, ঢাকা দৌঁড়াতে হবেনা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সার্বিক সমন্বয় করবেন সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ও উপপরিচালক ডা মো. মহিউদ্দিন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •