মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ার ২৯ কিঃমিঃ সড়কে শৃঙ্খলা আরো জোরদার করতে ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ হাতে নিয়েছে চিরিঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ। উচ্চ আদালাতের নির্দেশ মতে অবৈধ যানবাহন চলাচল ও শ্রমিক সংগঠন নাম দিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধে মাঠে নেমেছে তারা।

কুমিল্লা রিজিয়নের পুলিশ সুপার মোঃ নজরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম এবং সহকারি পুলিশ সুপার (চট্টগ্রাম সার্কেল) মোঃ শফিকুল ইসলামের নির্দেশে এসব উদ্যোগ হাতে নেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে চিরিঙ্গা হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) মোঃ আনিছুর রহমানের নেতত্বে একটি টিম মহাসড়কে সর্বসাধারণ, সকল যাত্রী, পরিবহন সেক্টরের সবাইকে উদ্দেশ্যে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

এ ফাঁড়ির আওতাধীন এলাকা আজিজনগর জেলা পরিষদ গেইট থেকে চকরিয়া হাঁসেরদিঘি পর্যন্ত মহাসড়কে চালাচ্ছে এ প্রচারণা। এই ২৯ কিলোমিটার মহাসড়ক জুড়ে মাইকিং ও পথসভার মাধ্যমে যাত্রী, চালক, মালিক ও শ্রমিক সংগঠনদের সতর্ক করা হচ্ছে। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মতে মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে চিরিঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের এ উদ্যোগ। তারপরেও মহাসড়কে যদি কোন ধরণের নৈরাজ্য চাঁদাবাজি পরিলক্ষিত হয় তাহলে জড়িতদের আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে কঠোর হুশিয়ারী দেন ফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ।

চিরিঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ (পুলিশ পরিদর্শক) মোঃ আনিসুর রহমান বলেন- ‘বেশ কিছুদিন ধরে মহাসড়কের চকরিয়ায় পরিবহন সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নাম দিয়ে চাঁদাবাজি করার অভিযোগ আসছে। বিষয়টি নিয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মহাসড়কে চাঁদাবাজি ও নৈরাজ্য বন্ধ করে শৃঙ্খলা ফেরাতে মাঠে নেমেছি। তাই আমরা ইতোমধ্যে যাত্রী, পরিবহন মালিক, শ্রমিক ও সাধারণ জনগণের সঙ্গে মতবিনিময় করেছি। বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়ে সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছি।

এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, মহামান্য হাই কোর্টের নির্দেশনা মহাসড়কে কোনপ্রকার তিনচাকার যানবাহন চলাচল করতে পারবেনা। সেই নির্দেশনা মোতাবেক আমরা কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। আগের চাইতে আরো বেশি তৎপর হতে ফাঁড়ি পুলিশের সবাইকে নির্দেশনা দিয়েছি। এরপরও মহাসড়কে যদি কোন অনিয়ম পরিলক্ষিত হয় তাহলে জড়িতদের কিছুতেই ছাড় দেওয়া হবে না।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •