আলমগীর মানিক,রাঙামাটি :
করোনার উপসর্গ নিয়ে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ষাটোর্দ্ধ বৃদ্ধা মাসুদা খাতুন মারা গেছেন(ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। তিনি রাঙামাটি পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিনের আম্মা। তিনি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১১ টা ২০ মিনিটের সময় তার মা শহরের চম্পকনগরস্থ সরকারী আইসোলেশন সেন্টারে মারা যান। এরআগে বেলা আড়াইটার সময় শ্বাসকষ্ট জনিত কারনে অসুস্থতাবোধ করলে তাকে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানকার জরুরি বিভাগে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পরে রোগির লক্ষণ দেখে কর্তৃপক্ষ তাকে চম্পকনগরের আইসোলেশন সেন্টারে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বজনদের বলে। পরে রাত নয়টার তাকে সেখানে নিয়ে গেলে রাত ১১টা ২০ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃপক্ষ মৃতদেহের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করবে জানিয়ে কাউন্সিলর হেলাল জানান, গত তিনদিন আগে তার মা বৃষ্টিতে ভিজেছিলেন। এরপর দুইদিন ধরে তিনি জ্বরে ভূগে মঙ্গলবার তার প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। মৃত্যুকালে তিনি পাঁচ ছেলে ও পাঁচ মেয়ে রেখে গেছেন।
এদিকে মঙ্গলবার রাতে রাঙামাটিতে নতুনভাবে পজেটিভ রিপোর্ট সনাক্ত হওয়া ১৬ জনের মধ্যে তিন বয়সী শিশুকন্যাটি মারা গেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃপক্ষ। করোনা ফোকাল পার্সন ডাঃ মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, গত ১০ তারিখে নমুনা সংগ্রহের পরের দিন ১১ই জুন মেয়েটি মারা গেলেও পরিবারের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য বিভাগকে কিছুই জানায়নি। আজ চট্টগ্রামের সিভাসু থেকে রিপোর্ট আসার পর মেয়েটির বাড়ি লকডাউন করতে গিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন জানতে পারে মেয়েটি মারা গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •