বরাবর,
জেলা প্রশাসক
কক্সবাজার।

বিষয়ঃ গরীবের পাশে দাঁড়ানোর আবেদন।

জনাব,
আসসালামু আলাইকুম। আশাকরি কবিড-১৯ করোনা মহামারিতে কক্সবাজারের আপামর সাধারণ জনতাকে সাথে নিয়ে ভাল আছেন।আমরা কক্সবাজার সদর থানার চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের বাসিন্দা হই। আমাদের ইউনিয়নের অধিকাংশ জনতা দরিদ্র সীমার নিচে বাস করে। লবন উৎপাদন, মৎস্য আহরন ও দিন মজুরি করে আমাদের সংসার চলে।
বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে অধিকাংশ লোক মৎস্য আহরণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে। মৎস্য আহরনের একমাত্র জলাশয় ইউনিয়নের দক্ষিণ পাশের বিস্তৃত সরকারী নদী ও খাল। চলতি মৌসুমে প্রভাবশালী কিছু লোক সরকারী অনুমতি না নিয়ে ইতোমধ্যে সমস্ত নদী ও খাল দখল করে নিজেদের আয়ত্তে নিয়ে সাধারণ জনগনের পেটে লাথি মারতে শুরু করেছে। যার প্রভাব গরীব মানুষের অনাহারে থাকার কারন হয়ে দাঁড়াবে। অভাবের কারনে সাধারন মানুষ সামাজিক অপরাধ মূলক কাজে পা বাড়াতে পারে।
এমনিতে করোনা মহামারিতে কক্সবাজারের আপামর মানুষের হাহাকার। কাজ নাই। ব্যবসা বানিজ্যের মন্দা। দিন মজুরি কাজ বন্ধ। অন্যদিকে চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের মৎস্য আহরনের এই রাস্তা বন্ধ হয়ে গেলে গলায় ফাঁস দিয়ে মরা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না।
মহাশয়,
সাধারন মানুষ রাজনীতি বুঝে না। কোন প্রকারে লবনে পানিতে দু’মুঠো ভাত পেঠে দিতে পারলেই রাত শেষে সকাল হয়ে যায়।প্রভাবশালীদের মুখের উপর কথা বলার সাহস সাধারণ মানুষের নাই। আপনার সহযোগিতা না হলে রোজগারের এই পথ বন্ধ হয়ে যাবে। আপনার নজরে নিয়ে আসার জন্য সাধারণ জনতার কোন পথ জানা নেই।তাই আমি খোলা চিঠির মাধ্যমে আপনার দৃষ্টি আর্কষনের চেষ্টা করলাম।প্রমান স্বরূপ ছবি দিয়েছি।
জনাব,
চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের প্রতি জনতার আস্থার কোন অভাব নাই। আমাদের পরিষদ জনবান্ধব পরিষদ। সাথে আপনার সহযোগিতা থাকলে ইনশাআল্লাহ আমরা এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাব।
অতএব,
আপনার নিকট আবেদন- দ্রুত সময়ের মধ্যে সমস্যা সমাধানের সহযোগিতা করে সাধারণ মানুষের জীবিকা নির্বাহের এই জলাশয় দখল মুক্ত করে চৌফলদন্ডী বাসীকে ধন্য করবেন।আপনার দীর্ঘায়ু কামানায় চৌফলদন্ডী ইউনিয়নবাসীর পক্ষে।

মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন
সেক্রেটারি
কক্সবাজার মাদানি ফোরাম
সৌদি আরব, মদিনা আল মনোয়ারা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •