সোয়েব সাঈদ, রামু :
রামুতে গভীর রাতে পিকআপ যোগে পাচারকালে চুরি করা গরু সহ চোর চক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে জনতা। এসময় চুরিতে ব্যবহৃত পিকআপও আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। রবিবার (১৪ জুন) দিবাগত রাত ৩টায় এ ঘটনা ঘটে। আটককৃত রেজাউল করিম (২৮) রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়া এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে।
ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম জানিয়েছেন, গভীর রাতে গরু চুরির খবর পেয়ে জনতা বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে রাত ৩টার দিকে ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের মালি পাড়া-লম্বরীপাড়া সড়কে অবস্থান নেয়া জনতা একটি পিকআপ তল্লাশী করে চুরি হওয়া গরু দেখতে পায়। এসময় জনতার হাতে রেজাউল করিম নামের এক চোর ধরা পড়লেও গরু বহনকারি পিকআপে (ডাম্পার) থাকা গরু চোর সিন্ডিকেটের আরো বেশ কয়েকজন সদস্য পালিয়ে যায়।
পরে আটককৃত রেজাউল করিম জনতা ও পুলিশের কাছে গরু চুরি-ডাকাতিতে জড়িত অনেকের নাম উল্লেখ করে স্বীকারোক্তি দেন। এরমধ্যে পালিয়ে যাওয়া ৩ গরু ডাকাত চক্রের সদস্যের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন, রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়া গ্রামের আমান উল্লাহর ছেলে মহিউদ্দিন ধলাইয়া, মৃত মো. ছৈয়দের ছেলে এরশাদুল হক ও চাকমারকুল ইউনিয়নের কোনার পাড়া এলাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে আব্বাস উদ্দীন। গরু চুরিতে ব্যবহৃত ডাম্পারটির মালিক রামুর দক্ষিণ ফতেখাঁরকল গ্রামের জাকের হোছেন।
জানা গেছে, উদ্ধার হওয়ার গরুটির মালিক ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়ার সিরাজুল হক। ওই রাতে গরুটি চুরি করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিলো। পথিমধ্যে জনতার হাতে গরু সহ ধরা পড়েন রেজাউল করিম।
রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিল্টন জানিয়েছেন, জনতার সহায়তায় চোরাইকৃত গরু এবং ব্যবহৃত পিকআপ সহ চিহ্নিত চোর রেজাউল করিমকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাষাবাদে সে পলাতক আসামীদের সহযোগিতায় আরো বিভিন্ন এলাকায় গরু চুরির কথা স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে আটককৃত রেজাউল করিম ও পলাতক গরু চোরদের অভিযুক্ত করে মামলা রুজু হয়েছে। আটক রেজাউল করিমকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
রামুর আদর্শ কৃষক, মুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর আহমদ জানিয়েছেন- একমাস পূর্বে তার খামার থেকে ২টি গরু চুরি হলেও এখনো এসব গরুর হদিস মেলেনি। তিনি আরো জানান, সাম্প্রতিক সময়ে রামুতে গরু চুরি-ডাকাতির ঘটনা আশংকাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রান্তিক গরু চাষি ও খামারীরা একের পর এক দুর্ধর্ষ গরু ডাকাতির ঘটনায় আতংকিত রয়েছেন। যে কারনে চোর-ডাকাতের ভয়ে রাত জেগে গরু পাহারা দিয়ে যাচ্ছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •