আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে প্রাণহানির সংখ্যায় যুক্তরাজ্যকেও ছাড়িয়ে গেল ব্রাজিল। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন আরও ৮৪৩ জন। ফলে সেখানে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪১ হাজার ৯০১ জন।

করোনায় মৃত্যুর হিসাবে বর্তমানে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। তাদের চেয়ে একমাত্র যুক্তরাষ্ট্রেই বেশি মানুষ মারা গেছেন। তবে গত সপ্তাহেই ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের গবেষকরা সতর্ক করেছেন, আগামী আগস্ট মাসের আগেই ব্রাজিলে আরও এক লাখ মানুষ মারা যেতে পারেন। অর্থাৎ মৃত্যুতে তারা যুক্তরাষ্ট্রকেও ছাড়িয়ে যাওয়ার সংশয় রয়েছে।

যুক্তরাজ্যে সরকারি হিসাবে করোনায় মারা গেছেন ৪১ হাজার ৪৮১ জন। তবে সন্দেহজনক মৃত্যুগুলো যোগ করলে এই সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে যাবে। যদিও, লাতিন আমেরিকার দেশটিতেও করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা অনেক কম দেখানো হচ্ছে বলে মত বিশ্লেষকদের।

ব্রাজিলে অনেক দেশের তুলনায় করোনা সংক্রমণ শুরু হয়েছিল বেশ পরে। সেখানে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল গত ২৬ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু এরপর থেকেই হু হু করে বাড়তে থাকে আক্রান্তের সংখ্যা। ইতোমধ্যেই দেশটিতে ৮ লাখ ২৮ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

ব্রাজিলে দ্রুত সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য দেশটির প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারোর খামখেয়ালিপনাকেই দায়ী করেছেন অনেকে। মহামারি শুরুর দিকে অনেকটা ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো তিনিও করোনা মহামারিকে মিডিয়ার তৈরি ‘আতঙ্ক’ এবং প্রাণঘাতী অসুখটিকে ‘সামান্য ঠাণ্ডা-জ্বর’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। সেই সময় দেশটিতে করোনায় প্রাণহানি ছিল মাত্র এক হাজারের মতো। কিন্তু এর ভয়াবহতা অনুভব না করে কোনও শক্ত পদক্ষপ না নেয়ায় প্রাণ গেল আরও ৪০ হাজার মানুষের। মৃত্যুর এই মিছিল শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা এখনও আন্দাজ করা কঠিন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •