সোয়েব সাঈদ
এ্যালায়েন্স ফর কোঅপারেশন এন্ড লিগ্যাল এইড বাংলাদেশ (একলাব) এর উদ্যোগে ও ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় কক্সবাজার জেলার রামু, মহেশখালি, চকরিয়া, উখিয়া ও টেকনাফ, কুতুবদিয়া ও পেকুয়া উপজেলার করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারনা (মাইকিং) চালানো হচ্ছে। দূর্গম, অনুন্নত ও প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে অবহেলিত জনগোষ্ঠিকে কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচতেন ও সতর্কতা সৃষ্টি এ প্রচারনার অন্যতম উদ্দেশ্য। এছাড়াও ইউনিসেফ এর আর্থিক সহযোগিতায় উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ব্লকে ব্লকেও মাইকিং করে প্রচারণা আরো জোরদার করা হয়েছে।
ইতিপূর্বে এ্যালায়েন্স ফর কোঅপারেশন এন্ড লিগ্যাল এইড বাংলাদেশ (একলাব) এর উদ্যোগে কোভিড-১৯ এই মহামারিকালীন কক্সবাজার জেলার টেকনাফ, উখিয়া, রামু, পেকুয়া, কুতুবদিয়া ও মহেশখালী উপজেলায় এবং সদর উপজেলায় শুকনো খাবার বিতরণ ও সচেতনতামূলক প্রচারনা চালানো হয়। চরম সংকটময় এ সময়ে প্রান্তিক জনপদে এ ধরনের বিরামহীন ও জনসচেতনতামূলক প্রচারনা সর্বত্র প্রশংসিত হচ্ছে।
এছাড়াও উপজেলা পর্যায়ে এডভোকেসি মিটিং, ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিউনিটি মিটিং, উঠান বৈঠক ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে সকল শ্রেণি-পেশার জনসাধারণকে করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে করণীয় সম্পর্কে সচেতন করা হচ্ছে। এ্যালায়েন্স ফর কোঅপারেশন এন্ড লিগ্যাল এইড বাংলাদেশ (একলাব) এর কমিউনিটি এনগেজমেন্ট অফিসার, আইএসপি ও ভলন্টিয়ারবৃন্দ এসব কার্যক্রমে আন্তরিকতা ও নিরলসভাবে ভূমিকা রাখছে।
একলাব কক্সবাজার এর প্রোগ্রাম লীড মোঃ রাশিদুল হাসান জানিয়েছেন, কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস বিশ্বের অন্যান্য সকল দেশের মতো বাংলাদেশে মহামারি আকারে দেখা দিয়েছে। দিনদিন করোনা ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে। বাড়ছে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা। এহেন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন জেলার বিভিন্নস্থানে লকডাউনসহ সচেতনতামূলক প্রচারনা চালিয়ে আসছেন। এরই অংশ হিসেবে এল্যায়েন্স ফর কোঅপারেশন এন্ড লিগ্যাল এইড বাংলাদেশ (একলাব) এর উদ্যোগে ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় কক্সবাজার জেলার রামু, মহেশখালি, চকরিয়া, উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারনা (মাইকিং) প্রচারনা চালানো হচ্ছে।
প্রসঙ্গত কোভিড-১৯ রেসপন্সে একলাব মার্চ ২০২০ মাস থেকে ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প, টেকনাফ, উখিয়া, পেকুয়া, মহেশখালী, কুতুবদিয়া ও কক্সবাজার সদর উপজেলায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য মাইকিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে যাহা কোভিড-১৯ প্রকোপ না কমা পর্যন্ত চলমান থাকবে। এছাড়াও ইউনিসেফ এর সহায়তায় একলাব ১০ হাজার পোস্টার, ২০ হাজার লিফলেট, ৫০০ এক্স-স্টান্ডসহ ব্যানার, ১ হাজার ফেস্টুন হোস্ট কমিউনিটির জন্য এবং ১ হাজার ফেস্টুন রোহিঙ্গা কমিউনিটির মাঝে বিতরণ করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •