মোহাম্মদ আকিব, উত্তর মহেশখালী:

কক্সবাজারের মহেশখালীতে টেকনোলজিস্টের অভাবে সম্ভব হচ্ছে না নিয়মিত নমুনা সংগ্রহ। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়োগপ্রাপ্ত দুজন টেকনোলজিস্টও বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হওয়ায় বেড়েছে ভোগান্তি। এর ফলে কার্যত নমুনা সংগ্রহ বন্ধ রয়েছে। অন্যদিকে সংগৃহিত নমুনার রিপোর্ট বেশ বিলম্ব হচ্ছে। এই নিয়ে সংক্রমনের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তথ্য মতে, দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে প্রায় চার লক্ষ মানুষের বসবাস। কিন্তু অধিক এই জনগোষ্ঠীর জন‍্য রয়েছে কেবল দুজন টেকনোলজিস্ট ( আব্দুল হালিম এবং নুরুল আলম হেলালী)। সবার নমুনা সংগ্রহের দায়িত্ব দুজন মানুষের কাঁধে। দিনরাত উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে ছুটে নমুনা সংগ্রহের চেষ্টা করেন দু’জন। কিন্তু এরপরও অনেকসময় নিয়মিত নমুনা সংগ্রহ সম্ভব হয় না। হলেও প্রয়োজনের তুলনায় অতি নগণ্য।

এদিকে গত ২৬ ই মে করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়েন টেকনোলজিস্ট আব্দুল হালিম এবং তার কয়েকদিন যেতে না যেতেই অর্থাৎ ৩ ই মে আক্রান্ত হয়ে পড়েন তার সহযোগী নুরুল আলম হেলালীও। যার কারণে নমুনা সংগ্রহ অনেকটা অসম্ভব হয়ে পড়েছে চার লক্ষ মানুষের আবাসস্থল মহেশখালীতে। অনেককেই করোনার লক্ষণ উপসর্গ নিয়েও নমুনা পরীক্ষা করতে না পারায় পোহাতে হচ্ছে ব‍্যাপক ভোগান্তি।

এই বিষয়ে করোনাক্রান্ত টেকনোলজিস্ট আব্দুল হালিমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘লক্ষ মানুষের নমুনা সংগ্রহের দায়িত্ব আমরা কেবল দু’জনের। যার কারণে প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ টি নমুনার বেশি সংগ্রহ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হয় না।’

দ্রুততর সময়ের মধ্যে টেকনোলজিস্ট নিয়োগের মাধ্যমে এই ভয়াবহ সংকট কাটিয়ে তোলার দাবী সচেতন মহলের।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •