মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের সিকদার পাড়ার মুহাম্মদ আয়াছ শিকদার (৪৭) এর মৃত্যুর ১০ ঘন্টা পর তার মাতা শামসুন্নাহার (৮০) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি–রাজেউন)। রোববার ৭জুন সকাল ১১ টা ১৫ মিনিটের দিকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় পুত্র মুহাম্মদ আয়াছ শিকদারের মৃত্যু ঘটে। এর ১০ ঘন্টা পর একইদিন রাত ৯টা ১৫ মিনিটের দিকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মাতা শামসুন্নাহার মারা যান।

মুহাম্মদ আয়াছ শিকদার গর্জনিয়া ইউনিয়নের সিকদার পাড়ার মরহুম ফজলুল করিম সিকদারের পুত্র। আর মরহুম ফজলুল করিম সিকদারের সহধর্মিণী হচ্ছেন, মরহুমা শামসুন্নাহার। মুহাম্মদ আয়াছ শিকদার চট্টগ্রামের ইয়ং ওয়ান গার্মেন্টস এর সহকারী ম্যানেজার পদে কর্মরত ছিলেন। সন্তানের মৃত্যুর কথা শুনে মরহুমা শামসুন্নাহার গুরতর অসুস্থ হয়ে পড়েলে তাকে একইদিন কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিলো। মরহুমা শামসুন্নাহারের স্বজনেরা জানিয়েছেন, তিনি বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে আগে থেকেই আক্রান্ত ছিলেন।

একইদিন মাগরিবের নামাজের পর গর্জনিয়া ইউনিয়নের সিকদার পাড়ায় মুহাম্মদ আয়াছ শিকদারের নামাজে জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। মরহুমা শামসুন্নাহার এসএসসি ১৯৮৪ ব্যাচের সদস্য আবদুল মাজেদ শিকদারের মাতা এবং মুহাম্মদ আয়াছ শিকদার তার ভাই।

শোক প্রকাশ :

এদিকে, এসএসসি ১৯৮৪ ব্যাচের সদস্য আবদুল মাজেদের মাতা এবং তার ভাই মুহাম্মদ আয়াছ শিকদারের মৃত্যুতে ১৯৮৪ ব্যাচের সকল সদস্য গভীর শোক প্রকাশ ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •