নীতিশ বড়ুয়া :

আবারো খাদ্য সামগ্রী নিয়ে রামুর ৫০ শয্যা বিশিষ্ট ডেডিকেটেড আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়ালেন আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি। শনিবার (৬জুন) দুপুরে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া’র হাতে এসব খাদ্য প্রদান করা হয়। এসময় ডেডিকেটেড আইসোলেশন সেন্টারে কর্মরত চিকিৎসক ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বিকালে আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি কক্সবাজার সদরের পিএমখালীর ধাওনখালীর বাসিন্দা, করোনাক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করা মাস্টার ছানাউল্লাহ এর জানাজার নামাজে অংশ নেন। পরে তিনি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাধীন রোগীদের খবরা-খবর নেন এবং হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. মহিউদ্দিনসহ ডাক্তারদের সাথে হাসপাতালের ব্যাবস্থাপনা বিষয়ে বিশদ আলোচনা করেন। আলোচনা শেষে এমপি কমল সাংবাদিকদের জানান- শুরুর দিকে কক্সবাজার ভালোর দিকে থাকলেও এখন দিন দিন করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে কমপক্ষে দুইশ জন চিকিৎসকের প্রয়োজন। সেখানে মাত্র ৫৯ জন ডাক্তার প্রতিনিয়ত চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এর মধ্যে অধিকাংশ ডাক্তার করোনা রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে নিজেরা করোনাক্রান্ত হয়েছেন। তিনি বলেন, জেলা সদর হাসপাতালের সাথে রামু, চকরিয়া ও উখিয়ার আইসোলেশন হাসপাতালের সাথে তেমন কোন সম্পর্ক নাই। ওইসব ডেডিকেটেড আইসোলেশন সেন্টারে করোনা রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে আর সদর হাসপাতাল অন্যান্য রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে।
আইসিইউ বিষয়ে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, জেলা সদর হাসপাতালে ২ টি আইসিইউ এবং ১০টি সিসিইউ রয়েছে। এতে সব সময় মুমুর্ষু রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। আইসিইউতে কাউকে সহযোগীতা দেয়া হচ্ছেনা এ তথ্যটি সম্পুর্ন ভুল।
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ইউএনএইচসিআর কর্তৃক প্রদত্ত আইসিইউ সমুহের কাজ দ্রুততার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। আগামী ২০ জুনের মধ্যে আইসিইউ গুলো ব্যবহার উপযোগী হবে বলে সংশ্লিষ্টরা তাঁকে জানিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রান্তি না ছড়িয়ে সঠিক তথ্য প্রকাশের আহবান জানিয়ে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, চিকিৎসায় ডাক্তারদের কোন অবহেলা হয়ে থাকলে ব্যবস্থাপনা কমিটি যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। ঘরে বসে কেউ বিভ্রান্তি ছড়াবেন না। দুঃসময়ে মানুষের জীবন নিয়ে অপরাজনীতি না করে, আসুন সকলে মিলে করোনা রোগীদের পাশাপাশি চিকিৎসকেরও পাশে থাকি। সকলকে মনে রাখতে হবে কক্সবাজারে প্রতিনিয়ত করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসায় জেলায় আরো আইসোলেশন সেন্টার প্রয়োজন। আমরা সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। করোনা রোগীদের সহযোগীতায় জেলার বিত্তবান দানশীল মানুষদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।
আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি’র দিনব্যাপী কর্মতৎপরতায় রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক, সাংবাদিক নীতিশ বড়ুয়া, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর ছিদ্দিক, আওয়ামী লীগ নেতা জাফর আলম, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম মেম্বার, যুবলীগ নেতা উত্তম মহাজন, যুবনেতা ঈমাম হোসেন, আজিজ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ সাথে ছিলেন।
রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া জানান, কক্সবাজার সদর আসনের সাংসদ আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি মহোদয় করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে অসহায় মানুষের সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন রোগীদের খাদ্য সামগ্রী প্রদানসহ সার্বিক সহযোগীতা করে যাচ্ছেন। আজকেও তিনি আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধিন রোগী ও চিকিৎসকদের জন্য রান্না করা খাবার নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন। ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে মাননীয় সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞ প্রকাশ করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •