মো.ফারুক.পেকুয়া :

কক্সবাজারের পেকুয়ায় মগনামা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমের ব্যক্তিগত উদ্যোগে করোনা রোগীদের জন্য পাঁচ বেডের আইসোলেশন সেন্টারের কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

শনিবার (৬জুন) দুপুরে মগনামা ইউপির স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশন সেন্টারের সমস্ত মালামাল হস্তান্তর করেন।

জানা গেছে, বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় মগনামা ইউনিয়নের সকল নাগরিকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে জনগণের সুবিধার্থে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করে।

পাশাপাশি মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সংক্রমণ রোধে লকডাউন চলমান সময়ে বিভিন্ন ভাবে মগনামার জনতার মঙ্গলের জন্য সবাই কে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করেছেন এবং করে যাচ্ছেন। সরকারি ত্রাণ সহায়তা ছাড়াও হতদরিদ্র মানুষদের মাঝে দিয়েছেন অহরহ ত্রাণ সামগ্রী।

তারই ধারাবাহিকতায় মগনামার মানুষের জন্য চেয়ারম্যানের নিজস্ব অর্থায়নে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শনিবার আইসোলেশন সেন্টার স্থাপনের যাবতীয় মালামাল কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাবিহা মেহজাবিনকে হস্তান্তর করা হয়।

চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ বলেন, পেকুয়া সরকারি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মুজিবুর রহমানের সুন্দর পরামর্শে আমি মগনামায় আইসোলেশন সেন্টার করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করি। মগনামা ইউপিতে কোন ধরণের করোনা রোগী সনাক্ত হলে এই আইসোলেশন সেন্টারে রেখে চিকিৎসা দেয়া হবে। তার জন্য প্রয়োজনীয় সবকিছু মালামাল নিয়ে আসা হয়েছে। এছাড়াও রোগীদের জন্য খাবার সামগ্রী থেকে শুরু করে চিকিৎসার ব্যয়ভারও বহন করা হবে। যার জন্য দুইজন অভিজ্ঞ নার্স নিয়োগের জন্য ইতোমধ্যে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়েছে।

পেকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক মুজিবুর রহমান বলেন, মহামারীর এ সময় সব হাসপাতাল ব্যস্ত সময় পার করছে। করোনার কারণে সারাদেশে চিকিৎসক থেকে শুরু করে অক্সিজেনের অভাবও রয়েছে। এক্ষেত্রে মগনামার চেয়ারম্যান আমার কাছে জিজ্ঞেস করে তার ইউনিয়নে একটি আইসোলেশন করলে কেমন হয়। আমি কোন কিছু বিবেচনা না করে তার মহৎ কাজে সমর্থন করি। চেয়ারম্যান নিজে বহু টাকা খরচ করে পাঁচ বেডের জন্য অক্সিজেন থেকে শুরু করে সমস্ত মালামাল ক্রয় করেছেন। চিকিৎসক হিসাবে থাকবেন মগনামা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ফাবিহা মেহজাবিন। তার সাথে থাকবেন দুইজন নার্স। প্রতিটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এভাবে এগিয়ে করোনা সংক্রমণ অনেকাংশে কমিয়ে আনা যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •