এস. এম. তারেক, ঈদগাঁও:

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁওতে অসুস্থ হাতিটিকে চিকিৎসার পরও বাঁচানো যায়নি। গত ১৯ মে ভোমরিয়াঘোনা রেঞ্জ অফিসের উদ্যোগে একদল প্রাণিসম্পদ চিকিৎসক হাতিটির সর্বশেষ চিকিৎসা সম্পন্ন করে। চিকিৎসার পর হাতিটি ধীরে ধীরে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠে এবং খাবারের সন্ধানে বেশ কয়েকবার লোকালয়ে গিয়ে হানা দিলে স্থানীয় লোকজন হাতিটিকে বনের দিকে তাড়িয়ে দেয়। এভাবে লোকালয়ের আশপাশে হাতিটি কয়েকদিন ধরে ঘোরাঘুরি করতে থাকে। পরে গত দুদিন আগে ভোমরয়িা রেঞ্জের অধীন পার্শ্ববর্তী চকোরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের পূর্ণগ্রাম বন বিট ও সংলগ্ন রাজঘাট বনবিট এলাকায় (পুরুষ) হাতিটির মৃত্যু হয়। সংবাদ পেয়ে ৬ জুন ভোমরিয়াঘোনার রেঞ্জ কর্মকর্তা হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে বন বিভাগের লোকজন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং প্রাণী সম্পদ চিকিৎসকদের খবর দিয়ে মৃত হাতিটির ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে।

ময়না তদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর ঠিক কী কারণে হাতিটির মৃত্যু হয়েছে তা জানা যাবে বলে জানিয়েছেন, ভোমরিয়াঘোনার রেঞ্জ কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন, হয়ত কোন অসাধু শিকারী হাতিটিকে গুলি করলে হাতিটি মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। যে কারনে হাতিটির ডান পায়ে জখমের চিহ্ন দেখা গেছে এবং পা ছিল ফুলা। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মৃত হাতিটিকে সৎকারের প্রক্রিয়া চলছিল

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •