আলমগীর মানিক,রাঙামাটি :
সকল প্রকার মৎস্য সম্পদের আহরণ ও বিপননে সরকারিভাবে তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা চলমান থাকা সত্বেও রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে অবৈধ মৎস্য শিকারের দৌরাত্ম বেড়েই চলেছে। অপর্যাপ্ত জনবল ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ছাড়াই এসব অবৈধ মৎস্য শিকারীদের বিরুদ্ধে গত এক মাসে ১৪০ টি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেছে বিএফডিসি কর্তৃপক্ষ।
বিএফডিসি রাঙামাটি কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক নৌবাহিনীর কমান্ডার তৌহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, গত পহেলা মে থেকে কাপ্তাই হ্রদে মাছ আহরণ বন্ধকালীন সময়ে বিএফডিসি কর্তৃক অভিযানে প্রায় ৪৫ হাজার মিটার জাল, ২০টি ইঞ্জিন চালিত নৌকা, ৬১টি দেশীয় নৌকাসহ অন্তত সাড়ে ৫শ কেজি বিভিন্ন প্রজাতির মাছ জব্দ করা হয়েছে।
বিএফডিসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কাপ্তাই হ্রদের আয়তন অপর পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির কিছু অংশেও পড়েছে। জব্দকৃত আলামতগুলো রাঙামাটি সদর, লংগদু, কাপ্তাই, বাঘাইছড়ি ও খাগড়াছড়ির মহালছড়ি এলাকা থেকে উক্ত জাল-নৌকা ও মাছগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। জব্দকৃত মালামালগুলো নিলামের মাধ্যমে প্রাপ্ত অর্থ সরকারী কোষাগারে জমা করা হবে বলেও জানিয়েছে বিএফডিসি কর্তৃপক্ষ।
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলরাশি রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে চলতি মৌসুমে হ্রদের ভারসাম্য রক্ষা এবং মাছের সুষ্ঠু ও প্রাকৃতিক প্রজনন, বংশবিস্তার ও উৎপাদন বাড়াতে চলতি বছরের গত পহেলা মে থেকে হ্রদে সকল প্রকার মৎস্য সম্পদ আহরণ ও বিপননের উপর তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাঙামাটির জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ। এই নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন সময়ে রাঙামাটির সকল বরফকলগুলো বন্ধ রাখার পাশাপাশি হ্রদে নিয়মিত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ।
বিএফডিসির ব্যবস্থাপক কমান্ডার তৌহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, বিশাল আয়তনের কাপ্তাই হ্রদের সর্বত্র নজরদারি করা বিএফডিসির একার পক্ষে সম্ভব নয়। নিজেদের সামর্থ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানের বোট ভাড়া করে নৌ-পুলিশের সহায়তা নিয়ে হ্রদের বিভিন্ন পয়েন্টে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অবৈধ শিকারীরা সংশ্লিষ্ট্যদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে হ্রদের বিভিন্ন ঘোনা গুলোতে কারেন্ট জাল ও সুতোর জাল দিয়ে ডিমওয়ালা মাছসহ পোনা মাছগুলো ধরে পাচার করছে। এমতাবস্থায় রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ির বিভিন্ন পয়েন্টগুলোতে অভিযান পরিচালনা করছে বিএফডিসি কর্তৃপক্ষ। সামনের দিনগুলোতে এই ধরনের অভিযান আরো জোরদার করা হবে মন্তব্য করে কমান্ডার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, স্থানীয়দের সচেনতার মাধ্যমেই অবৈধ মৎস্য শিকারীদের রুখে দেওয়া সম্ভব।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •