নিজস্ব প্রতিবেদক:
রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ৮ নং ওয়ার্ডের খন্দকার পাড়ায় (চেইন্দা) রাতের অন্ধকারে বসতঘরে ঢুকে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় বাবুল হোছন (২৬) আমের এক আসামি গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার (৩ জুন) দুপুরে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আসামি বাবুল হোছন চেইন্দা এলাকার নুরুল হকের ছেলে।

রামু থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুব্রত রায় আসামী গ্রেপ্তারের কথা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গ্রেপ্তার আসামি বাবুল হোছনসহ আরো কয়েকজন মিলে বসত বাড়িতে ঢুকে ব্যাপক হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটায়। এতে ভিকটিম মোঃ ইসলাম (৬০) ঘটনায় অভিযুক্ত করে ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দেন। আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

মামলার বাদী মোঃ ইসলাম জানান, গত ১৪ মে দিবাগত রাত ১১টার দিকে মোঃ বাবুলসহ সশস্ত্র লোকজন তার বসত বাড়িতে ঢুকে ব্যাপক হামলা ভাঙচুর চালায়। এতে তার স্ত্রী, কলেজ পড়ুয়া মেয়ে ইয়াছিন ও ফারজানা বাধা দিলে তাদের চারজনকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে-কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। স্থানীয়রা তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়।

মোঃ ইসলাম আরো জানান, সন্ত্রাসীরা তার স্ত্রীর হাত ভেঙে দুই টুকরো করে ফেলে। ডান হাতের মধ্যমা আঙ্গুল কেটে নেয়। মেয়েদের পা কেটে ও গলা টিপে হত্যার চেষ্টা চালায়।

এ ঘটনায় একই এলাকার বাবুল হোছন, আলী হোছন, নুরুল হক, শামশুল আলম, জমির হোছন, নবী হোছন, মোঃ কামাল, দেলোয়ার হোছনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দেন।

ঘটনার তদন্ত করে সত্যতা পাওয়ায় আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান থানার ওসি মোঃ আবুল খায়ের।

ঘটনায় জড়িত সকলকে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •