মুহিববুল্লাহ মুহিব, সিবিএন :

প্রতি বছর ঈদের পরদিন থেকে পর্যটকে ভরপুর হয়ে উঠে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত নগরী কক্সবাজার। চলে পুরোদমে ব্যবসা। কিন্তু এবার বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে সেটি আর হয়ে উঠেনি। প্রায় দুই মাস ধরে লকডাউনের কবলে পড়েছে পর্যটন শিল্প। এতে বেকার হয়েছে অন্তত ৩৫ হাজারের বেশী শ্রমিক। চরম লোকসানে পড়েছে হোটেল-রিসোর্ট ও পর্যটন সংশ্লিষ্ট্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

এমন পরিস্থিতিতে এ শিল্পকে ধরে রাখতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানোর সব প্রস্তুতি নিয়ে সীমিত পরিসরে হলেও হোটেল-রিসোর্ট খুলতে চান মালিকরা।

এদিকে, প্যাসিফিক এশিয়া ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশন (পাটা) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের হিসেবে, শুধু রমজান ও ঈদ মৌসুমে দেশের হোটেল ট্যুরিজম খাত ৫০০ কোটি টাকার ব্যবসা হারিয়েছে। আর ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) বলছে, অ্যাভিয়েশন খাত ছাড়া শুধু হোটেল-রিসোর্টসহ পর্যটনের বিভিন্ন ব্যবসায় এ বছর এখন পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।

অন্যদিকে তারকা হোটেলগুলোর সংগঠন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যাসোসিয়েশন (বিহা) পর্যটন মন্ত্রণালয়ে চলতি বছরের মে পর্যন্ত তিন মাসে ৫০ হাজার কোটি টাকা ক্ষতির ধারণা দিয়েছে। যার মধ্যে শুধু কক্সবাজারেই ক্ষতি কয়েক হাজার কোটি টাকা বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অন্যান্য বছর সৈকতের ১১ টি পয়েন্টে ছিল মানুষের উপচেপড়া ভিড়। কিন্তু এবার নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে সেখানে বিরাজ করছে সুনসান নিরবতা। তালাবদ্ধ প্রায় সাড়ে চার শতাধিক হোটেল-মোটেল রিসোর্ট। জনমানব শুন্য হয়ে পড়েছে মেরিনড্রাইভ সড়কটিও।

ওয়াল্ড বীচ রিসোর্টের পরিচালক শাহিনুল ইসলাম শাহিন বলেন, দীর্ঘ সময় হোটেলের কার্যক্রম বন্ধ। একেবারে বেকার হয়ে পড়েছে শ্রমিকরা। মালিকরা চলতে পারবে কোন না কোন ভাবে কিন্তু শ্রমিকরা কি করবে। তাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মেনে কিছুটা হলেও সচল করা হোক।

হোটেল নিসর্গের ব্যবস্থাপক আব্দুল কাদের বলেন, প্রায় ৩৫ হাজার শ্রমিক খেয়ে না খেয়ে পড়ে আছে। তাদের পরিবার নিয়ে খুবই কষ্টে দিন পার করছে। এ অবস্থায় যদি হোটেল-মোটেল চালু না হয় তাহলে তো এ শিল্পকে বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়বে।

কলাতলী-মেরিনড্রাইভ হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মুকিম খান সিবিএনকে বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশা ও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানোর সকল প্রস্তুতি নিয়ে সীমিত পরিসরে হলেও হোটেল-মোটেল রিসোর্ট চালুর সিদ্ধান্ত নেয়া হোক। অন্যথায় বড় ধরণের বিপর্যয়ে পড়বে এ শিল্প। যা কাটিয়ে উঠা খুবই কঠিন হবে। তাই দ্রুত এ শিল্প ধরে রাখতে সিদ্ধান্ত পৌছানো জরুরী।

কোভিডের প্রভাবে সারাবিশ্বে সবচেয় বেশি প্রভাব পড়েছে পর্যটন শিল্পে। ২০০০ সালে সার্স ভাইরাসে পর্যটনে যে ক্ষতি হয়েছিল এবার করোনাতে তারও ১০ গুণ বেশি ক্ষতির আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •