সিবিএন ডেস্ক:
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক নারীর (৪৫) মৃত্যু হয়েছে। ওই নারীর মৃত্যুর পর পরিবার ও স্বজনরা বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গিয়ে ওই নারীর দাফন সম্পন্ন করেন।

মঙ্গলবার (২৬ মে) দুপুরে উপজেলা দাফন কমিটি ওই নারীকে জানাজা শেষে কবরস্থ করেন। এ ঘটনায় ওই বাড়িসহ আশপাশের আরও ১৪টি বাড়ি লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

এর আগে সোমবার (২৫ মে) ঈদের দিন রাতে উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের পশ্চিম বাছহাটী (রামগঞ্জ বাজার) গ্রামে স্বামীর বাড়িতে তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানায়, ওই নারী কয়েকদিন থেকে সর্দি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও গলাব্যথায় ভুগছিলেন। অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা থেকে পিকআপভ্যানে গত ২৪ মে গভীর রাতে গ্রামের বাড়ি ফেরেন ওই নারী। করোনার উপসর্গ নিয়ে বাড়ি ফিরলেও তা গোপন রাখে পরিবারের লোকজন। গতকাল সন্ধ্যায় ওই নারীর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে নিজ বাড়িতে মারা যান তিনি।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় উপজেলা প্রশাসন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য সহকারী গিয়ে ওই নারীর নমুনা সংগ্রহ করেন। এরপর ওই নারীর লাশ দাফন করা হয়। ওই নারী ঢাকায় ভিক্ষা করতেন বলে জানা গেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আশরাফুজ্জামান সরকার জানান, উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া নারীর লাশ দাফন করা হয়েছে। রাতেই তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রমেক হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। পরিবারের লোকজনের নমুনা সংগ্রহ করে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •