শাহেদ মিজান, সিবিএন:

গত ২৫ মে ঈদের দিন প্রাপ্ত নমুনা রিপোর্টে পজেটিভ আসে কুতুবদিয়ার করোনা আক্রান্ত বাবুলের। তবে তিনি রিপোর্ট আসার একদিন আগেই কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়েছিলো। পালিয়ে গিয়েও তিনি স্থিতিত থাকেননি। পড়েছেন ঈদের নামাজ। সংস্পর্শে গিয়েছিলো পরিবার, আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-পড়শিসহ বহু লোকের। এতে তার থেকে আরো অনেকে সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই সংক্রান্ত আশঙ্কার কথা জানিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন কুতুবদিয়া থানারও ওসি দিদারুল ফেরদৌস। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে এই স্ট্যাটাস দেন তিনি।

ওসি জানান, ১১ দিন আগে চট্টগ্রাম থেকে কুতুবদিয়াতে প্রবেশ করেন ওই বাবুল। নিয়ম মতে অন্যান্যদের মতো করোনা আক্রান্ত বাবুলকেও কোয়ারেন্টাইনে পাঠায় পুলিশ। গত ১৮ মে পরীক্ষার জন্য তার নমুনা নেয়া হয়। নমুনার রিপোর্ট পাওয়া যায় ঈদের দিন (২৫ মে) সন্ধ্যায় ।

ওসি দিদারুল ফেরদৌস আরো জানান, রিপোর্ট আসার একদিন আগে অর্থাৎ ঈদের আগের রাতেই সবার অলক্ষ্যে কৌশলে কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়ে যায় ‘অধৈযর্’ বাবুল। ওই দিন ১১ দিন কোয়ারেন্টাইন সম্পন্ন হয়েছিলো তার। কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়ে কোথাও স্থিতিত থাকেননি তিনি। পড়েছেন ঈদের নামাজ। সংস্পর্শে গেছে তিনি নিজের বাড়ির লোকজনের, ঈদের দিন বেড়িয়েছেন স্বজনের বাড়ি বাড়ি। ‘হাওয়া’ খেতে ধুরং বাজারেও ঘুরেছেন; দিয়েছেন অনেকের সাথে আড্ডা। বীরত্বপূর্ণ ভঙ্গিতে কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়ে যাবার গল্প বলেও মজা নিয়েছেন।

ওসি বলেন, কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর আক্রান্ত বাবুলকে হয়ে খুঁজে বেড়িয়েছে পুলিশ। কিন্তু সে খবর পেয়ে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে কৌশলে সবখানে ঘুরে বেড়িয়েছে। শেষে ঈদের দিন গভীর বাড়ির দূরবর্তী এক স্বজনের বাড়িতে পুলিশ তাকে খুঁজে পায়। সাথে সাথে তাকে আবারও কোয়ারেন্টাইনে পাঠায়। তবে আক্রান্ত বাবুল যেসব আত্মীয়ের বাড়ি গেছেন এরকম সম্ভাব্য ১৫ টি বাড়ি লক ডাউন করা হয়েছে।

সম্ভাব্য বাড়িগুলো লকডাউন করলেও যারা করোনা আক্রান্ত বাবুলের সংস্পর্শ হয়েছে তাদের নিয়ে বেশ চিন্তিত পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগ। কারণ এতে আরো সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই যারা বাবুলের সংস্পর্শে এসেছেন তাদেরকে নিজ নিজ উদ্যোগে সতর্ক হয়ে কোয়ারাইন্টানে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ওসি।

উল্লেখ্য, কক্সবাজার জেলার অন্যান্য উপজেলায় হুহু করে করোনা রোগী বাড়লেও কুতুবদিয়ায় এখনো প্রায় সুরক্ষিত হয়েছে। ইতোপূর্বে এক মহিলা করোনা আক্রান্ত হলেও তিনি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। দ্বিতীয় রোগী হিসেবে এই আলোচিত বাবুল সনাক্ত হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •