গত ১৯ মে অনলাইন নিউজ পোর্টাল Voic world 24. Com  এ উখিয়ায় RAB এর  নাম ভাঙ্গিয়ে  লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিলেন প্রতারক   এবং ১৮ মে www.Coxsbazarnews.com এ  বালুখালীতেনানা কৌশলে লোকজনের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এক প্রতারক চক্র শীর্ষক   পৃথক শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদ সমূহ আমার দৃষ্টিগোচর  হওয়ায়  উক্ত মিথ্যা এবং মানহানিকর সংবাদের জোর  প্রতিবাদ ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এটি চিহ্নিত ইয়াবা  সিন্ডিকেট সদস্যদের  ষড়যন্ত্রের নীল নকশার বহিঃপ্রকাশ। আমাকে  জড়িয়ে যে সব  সংবাদ সমূহ ছাপানো হয়েছে   সবই মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।  ষড়যন্ত্র  ও আক্রোশমূলক প্রকাশিত সংবাদ গুলো পড়ে স্থানীয় সচেতন নাগরিক সমাজের মাঝেও ক্ষোভের  সৃষ্টি হয়েছে। তাদের দাবি নুরুল আলম চৌধুরীর  বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ  সম্পূর্ণ  মিথ্যা ও অবান্তর। বাংলাদেশ কৃষকলীগ কক্সবাজার জেলা শাখার স্থানীয় সরকার বিভাগ সম্পাদক,  উখিয়া কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন উখিয়া উপজেলা শাখার অর্থ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন নুরুল আলম চৌধুরী। এছাড়াও সমাজসেবা সহ সামাজিক কল্যাণমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছি। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি  আবুল কাশেমের ছেলে   হাজী আব্দুল গফুরের  নিকট থেকে  RAB এর নাম  ভাঙ্গিয়ে কোন প্রকার টাকা আদায় করিনি।    আমার সামাজিক ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন ও মানহানি করার জন্য এ ধরনের  জঘন্য মিথ্যাচার করা হচ্ছে। বাস্তব ঘটনা হচ্ছে এই সেই গফুর, পুরো পরিবার ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত। গত  ১২ মে  রামু ক্রসিং হাইওয়ে পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ আটক হন  তারই আপন ভাই নূর মোহাম্মদ। এর আগে ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে  তার আপন ভাগিনা ঝুনু চৌকিদার বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ RAB এর  হাতে আটক হয়। আর এইসব ইয়াবা ব্যবসার নেপথ্যের ভূমিকা পালন করে গফুর হাজী। তার অপকর্ম  ঢাকতে   আমার বিরুদ্ধে বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়ে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করতেছে।   মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইয়াবার বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করলে আমরা প্রশাসনকে সহযোগিতা  করার জন্য এগিয়ে আসি।     পাশাপাশি ইয়াবা বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ  গড়ে তোলার জন্য সচেতনতামূলক সভা আয়োজন সহ  আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর     নানা কর্মসূচিতে   অংশ গ্রহন করে থাকি।   এতেই আমি ইয়াবা গডফাদারদের টার্গেটে পরিণত হই। কক্সবাজার দক্ষিণ সীমান্তের ইয়াবার গডফাদার ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত এবং বহু মামলার আসামি  পালংখালী ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার ইয়াবা বখতিয়ার ও তার সেকেন্ড ইন কমান্ড  সহোদর জাহাঙ্গীর আলম এবং  সাবেক ছাত্রদল ক্যাডার রিদওয়ান সিদ্দিকী মটর সাইকেল যোগে   গত ৮ মে  রাতে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্য   আমার বাড়ি যায়।   আমাকে না পেয়ে পরিবারের সদস্যদের সামনে প্রকাশ্যে আমাকে জীবনে শেষ করে দেয়ার হুমকি দিয়ে তারা বীর দপে চলে আসে। আমি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে  গত ১০ মে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার ও  RAB  এর সিওকে লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। একই সাথে উখিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি লিপিবদ্ধ দায়ের করা হয়। ইয়াবার গডফাদার মেম্বার বখতিয়ার একজন শীর্ষ  ইয়াবা ডিলার।  মিয়ানমারের সাথে তার সরাসরি ইয়াবা কারবার। ২০১৬ সালে ঢাকায় ৫০ হাজার ইয়াবা সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হন। তার বিরুদ্ধে খিলক্ষেত থানায় মামলা দায়ের করে। যার নম্বর ১৬ (৬)২০১৬। এর আগে  ২০১১ সালে পালংখালীতে বিজিবি সদস্যদের হাতে ইয়াবা সহ  আটক হয়। উখিয়া থানার মামলা নম্বর ১২/২০১১।  বালুখালীতে মাদক বিরোধী অভিযান চলাকালে    বিজিবি সদস্যদের কে গুলি করে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে দায়েরকৃত সেই মামলায়ও     মেম্বার বখতিয়ার আসামী। উখিয়া থানার মামলা নম্বর ২/২০১৫ ।  এ ছাড়াও ইয়াবা গডফাদার বখতিয়ারের বিরুদ্ধে  মাদক,  অস্ত্র,   খুনের চেষ্টা সহ বিভিন্ন অপরাধ ও রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত থাকার অপরাধে      উখিয়া  থানায় মামলা নম্বর যথাক্রমে   ৫/২০০৯,  ৩/২০০৮।   কক্সবাজার মডেল সদর থানার মামলা নম্বর ৪১/২০১৫ ও বাগেরহাট চিতলমারী থানায় মামলা রয়েছে।  যার নম্বর ৪/২০১৫।   তারই আপন সহোদর জাহাঙ্গীর হচ্ছে ইয়াবা পাচারের টাকা লেনদেন সহ পুরো দেশে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে।  তার বিরুদ্ধেও উখিয়া ও কক্সবাজার মডেল থানায় মাদক নিয়ন্ত্রণ আইন সহ বিভিন্ন গুরুতর অপরাধে অসংখ্য মামলা রয়েছে। উখিয়া থানারমামলা নম্বর  যথাক্রমে   ২/২০১৫,  ১৫/২০১৬,  ৮/২০১৯ ও কক্সবাজার মডেল থানায়ও মামলা রয়েছে।  যার নম্বর ৫৭ /২০১৭ অসংখ্য মামলার আসামি ইয়াবা সম্রাট বখতিয়ার ও তার সহোদর ইয়াবা জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে ভুট্টা ও রিদুয়ান বিশাল অংকের টাকার মিশন নিয়ে আমাকে  প্রকাশ্যে হত্যার হুককি সহ বিভিন্ন মিডিয়ায় আমার  বিরুদ্ধে একের পর এক   মিথ্যা অপপ্রচার    চালিয়ে যাচ্ছে। সরে জমিন তদন্ত করলে প্রকাশিত সংবাদের বিন্দু মাত্র সত্যতা খুজে পাওয়া যাবে না। আমাকে জড়িয়ে   বানোয়াট ,  অসত্য ও মিথ্যা সংবাদ ছাপিয়ে তাদের ইয়াবা ব্যবসা ও অবৈধ কর্মকান্ড ধামাচাপার  কৌশল হিসেবেবেচে নিয়েছে।      অথচ উখিয়া বাসী তথা বালু খালীর স্হানীয় সচেতন নাগরিক সমাজ তাদের কালো ব্যবসার সম্পর্কে সবাই অবগত।     শুধু মাত্র আমাকে ঘায়েল ও হয়রানি
করার কু উদ্দেশ্যে  ইয়াবার আন্ডার ওয়াল্ড সিন্ডিকেট বখতিয়ারের কু প্ররোচনায় তথাকথিত গফুরকে লেলিয়ে দিয়ে      আমার বিরুদ্ধে মানহানিকর সংবাদ প্রচার করে রাজনৈতিক ও সামাজিক ফায়দা হাসিলের হীন অপচেষ্টা করেছে।  আমি এহেন বিবেকহীন কুরুচিপূর্ণ পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদের জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।  পাশাপাশি
তথ্য বিকৃত ও বানোয়াট সংবাদ পড়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের নিকট আমার  সবিনয় অনুরোধ     রহিল।

প্রতিবাদকারী
 নুরুল আলম চৌধুরী
পিতা মৃত ইসলাম মিয়া, বালুখালী,  উখিয়া

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •