মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী:

সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী ও প্রবীন রাজনীতিবিদ এডভোকেট জহিরুল ইসলাম এর মৃতদেহ কক্সবাজারে আনা হয়েছে। সোমবার ১৮মে রাত পৌনে ১২টার দিকে মরহুম এডভোকেট জহিরুল ইসলাম মৃতদেহ কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ সংলগ্ন তাঁর বাসভবনে আনা হয়।

বিষয়টি মরহুম জহিরুল ইসলামের সন্তান, আওয়ামীলীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম সিবিএন-কে নিশ্চিত করেছেন। তাঁর পিতার লাশ ফ্রীজার এম্বুল্যান্সে এডভোকেট জহিরুল ইসলামে চিরচেনা বাড়ীর সামনে রাখা হয়েছে। করোনা ভাইরাস জনিত লকডাউন (Lockdown) পরিবেশের মাঝেও শত শত মানুষ এডভোকেট জহিরুল ইসলামের নিথর চেহারাটি দেখার জন্য সেখানে আসছে। মরহুমের স্বজনেরা মরহুম জহিরুল ইসলামের মৃতদেহ দেখতে আসা লোকজনকে স্বাস্থ্যবিধি মানানোর জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

প্রসঙ্গত, মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর এডভোকেট জহিরুল ইসলাম (৮০) গত সোমবার ১৮মে বেলা আড়াইটার দিকে চট্টগ্রামের সিএইচসিআর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালল্লিহি .. রাজিউন)। পরে তাঁর মরদেহ চট্টগ্রাম শহরের নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির তাঁর জ্যৈষ্ঠ সন্তান বিশিষ্ট ব্যাংকার জাহেদুল ইসলামের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। চট্টগ্রামে মরহুম এডভোকেট জহিরুল ইসলামের প্রথম নামাজে সোমবার মাগরিবের নামাজের পর নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ সড়কের বাসিন্দা এডভোকেট জহিরুল ইসলামের আদিনিবাস চকরিয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নে। মৃত্যুকালে ৩পুত্র, ৩কন্যা, স্ত্রী সহ অনেক গুণগ্রাহী, অনুসারী ও শুভাকাঙ্ক্ষী রেখে যান তিনি।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের অধিকারী এডভোকেট জহিরুল ইসলাম গণপরিষদের সদস্য, কক্সবাজার জেলার গর্ভনর, কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সফল সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এবং গণফোরাম প্রতিষ্ঠাকালীন প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্বাহী সদস্য ছিলেন। কক্সবাজার বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্বও দীর্ঘদিন পালন করছেন তিনি।

এডভোকেট জহিরুল ইসলামের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা আজ মঙ্গলবার ১৯মে জুহুরের নামাজের পর তাঁর বাড়ি সংলগ্ন কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্স মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার কক্সবাজারে নামাজে জানাজা শেষে তাকে শহরের বইল্ল্যাপাড়া কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে মরহুমের সন্তান রাশেদুল ইসলাম জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •