মোঃ শহিদুল্লাহ

 

আমরা অনেকে জন্মদিন, বিবাহ বার্ষিকী পালন করি।আমরা কি এর ভয়াবহতা সম্পর্কে জানি?যদি না জেনে থাকি তাহলে জেনে নেই।সবার কাছে আমার এই ক্ষুদ্র বার্তা।

আমাদের ইসলাম ধর্মে কোথাও জন্মদিন পালন বা বিবাহ বার্ষিকী পালন এগুলোর কোনো নজির নেই। মোহাম্মদ (সা) বা তার সাহাবীগণ কেউই এই সমস্ত জিনিস কখনোই পালন করেন নি।তাহলে আমরা কোথা থেকে পেলাম এগুলো??

এ ক্ষেত্রে বলাই বাহুল্য যে এগুলো সম্পূর্ণ শরীয়াত বিরোধী, বিদআতী,এবং অমুসলিমদের পন্থা।

ঈসা (আ) বাবা ছাড়া জন্ম নিয়ায়,তার জন্মকে বিশেষ কিছু মনে করে তার অনুসারীরা তার জন্মদিন টাকে পালন করে আসছে।তাই বলা যায় এটা সম্পূর্ণ অমুসলিমদের একটা উৎসব। আর নবী করীম (সা) বলেছেন, যে ব্যাক্তি অমুসলিমদের কোনো কিছু অনুসরন করলো,সে যেন তাদের দলভুক্ত হয়ে গেলো(সহিহ বুখারি ৩৬৮৮,৬১৭১,৭১৫৩।মুসলিম ২৬৩৯।তিরমিযী ২৩৮৫,২৩৮)।
এ থেকে বুঝা যায় এটা সম্পূর্ণ একটা গর্হিত কাজ।

আমরা প্রতিদিনই নতুন করে জন্ম নেই।আমরা যখন ঘুম থেকে জাগ্রত হই তখন নতুন করেই আমাদের জন্ম হয়।তখন আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া জ্ঞাপন করতে পারি যে আল্লাহ আমাদের একটা নতুন দিন উপহার দিয়েছেন।

আবার আমরা অনেকে বিবাহ বার্ষিকী পালন করি। কেন কি দরকার?

এখন আপনি বলতে পারেন আমি আমার wife বা husband কে একটু খুশি করার জন্যই করি।তাতে কি সমস্যা।আর ইসলামে তো বলা হয়েছে একে অপরকে খুশি করার জন্য।

হ্যাঁ! অবশ্যই খুশি করবেন কিন্তু ওইদিনই কেন?আল্লাহ তো আমাদের জন্য অনেক দিন দিয়েছেন উৎসবের জন্য।তবে ওই দিনটিতেই কেন আপনি খুশি করবেন?
এখন আপনি বলতে পারেন যে আমার নিয়ত ঠিক থাকলেই তো হলো ।তাহলে কি আমরা কেক খাওয়ার সময় কেটে খাবো না নাকি?

অবশ্যই কেক কেটে খাবেন।কিন্তু আপনি যে ওই দিনটিকেই নির্দিষ্ট করে আপনি কোন নিয়তে কি করছেন তা আর কারোই বোঝার বাকি থাকে না।

আপনি আপনার জন্ম বারে রোজা রাখেন যা আমাদের নবী কারীম (সা) করে গিয়েছেন,আপনাকে একজন নেককার স্ত্রী বা স্বামী দিয়েছেন তার জন্য আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।কোন সমস্যা নেই তো।

আমাদের ধর্ম হলো সবথেকে লেটেস্ট ধর্ম। এই ধর্ম আপনাকে প্রতিটি যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য সাহায্য করে।আমাদের ধর্মে এমন কোন বিষয় নেই যা আমাদেরকে আপডেট হতে পিছিয়ে রাখবে।
তাহলে শুধু শুধু কেন আমরা বিজাতীয়দের অন্তর্ভুক্ত হবো? আমরা এতদিন যারা এগুলো পালন করে আসছি,আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিবো ইনশা আল্লাহ্।

মোঃ শহিদুল্লাহ
কম্পিউটার সাইন্স ইন্জিনিয়ারিং
কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •