রফিক মাহমুদ, সিবিএন:
উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের পূর্বাঞ্চল নামের খ্যাত পূর্ব দরগাহ বিল হাতিমোরা এলাকায় ইয়াবা সন্ত্রাসীদের হামলায় মহিলাসহ ৮ জন আহত হয়েছে। শুধু তাই নয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলার পর আহত আব্দুস সালামের পরিবার অবরুদ্ধ করে রাখে। ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি উখিয়া উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তাকে জানানোর পর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় আহতদেরকে উদ্ধার করে উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৫মে শুক্রবার সন্ধ্যায়।

আহতরা হল আব্দুস সালাম, স্ত্রী নুর জাহান, পুত্র আহমেদ কবির, তার স্ত্রী মনি আক্তার, মাওলানা নুরুল আলম ও তার স্ত্রী মর জান, নুরুল আমিনের স্ত্রী জুবাইদা আক্তার ও আব্দুস সালামের কন্যা রাবেয়া বেগম।

জানা যায় ওই এলাকায় ঘরজামাই হিসাবে বসবাস রত বুলুর কাছে পাওনা টাকা চাইতে গেলে আব্দুস সালাম এর সাথে তর্কবিতর্কে লিপ্ত হয়। স্থানীয় জনগণের হস্ত ক্ষেপ করায় বড় ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি।

এদিকে গ্রামবাসীরা জানান, ইয়াবার গডফাদার জালাল আহমদ সালিশের কথা বলে আব্দুস সালাম কে ডেকে আনেন। তিনি আসার সাথে সাথে ইয়াবা কারবারি সাইফুল নেতৃত্বে ১৫/১৮ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আব্দুস সালাম কে এলোপাথাড়ি হামলা শুরু করে। তার চিৎকারে শুনে পুত্র আহমেদ কবির এগিয়ে আসলে তাকে হত্যার চেষ্টা চালায়।

শুধু তাই নয় আহতদেরকে রক্ষা করতে এসে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন স্ত্রী পুত্রবধূ কন্যা ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন। সন্ত্রাসীরা দা কিরিচ ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বর্বোরচিত হামলা চালায়।

আহত আব্দুস সালাম অভিযোগ করে বলেন, জালাল আহমদ ইয়াবা গডফাদার সাইফুল এর নেতৃত্বে ইমতিয়াজ, শাহ আলম বর্মাইয়া রুবেল ইদ্রিস বুলু ও মিন্টু সহ চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আমার বাড়িতে হামলা সহ অবরুদ্ধ করে রাখে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান সন্ত্রাসীদের তান্ডব লীলা চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আহতদের পরিবারকে ঘন্টার পর ঘন্টা অবরুদ্ধ করায় স্থানীয় বাসিন্দারা আহতদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতলে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যেতে পারছিলেন না।

এদিকে ঘটনাটি উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরীকে অবহিত করলে তিনি বিষয়টি উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কে জানান। এক পর্যায়ে উখিয়া থানার ওসির নির্রাদেশে আটটার দিকে উখিয়া থানার এস আই শামীমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সন্ত্রাসীদের কবল হতে আহতদেরকে উদ্ধার করে উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করে। এ সময় স্থানীয় মেম্বার ও সচেতন নাগরিক সমাজ পুলিশকে সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন।

অভিযোগে প্রকাশ অতিসম্প্রতি পরিবারের সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ইয়াবাকারবারী সাইফুলসহ ৪জন কে আটক করে। ওই ঘটনায় ইয়াবা কারবারি সিন্ডিকেট সদস্যরা আহমদ কবিরকে টার্গেট করে মূলত ইয়াবা কারবারীরা পরিকল্পিত ভাবে হত্যার উদ্দেশ্যেে ঘটনাটি চালিয়েছে। এ ব্যপারে আবদুস ছালাম বাদী হয়ে ১৪ জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেছে বলে জানা গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •