জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলায় যাকাতের টাকা বিতরণ নিয়ে মারামারির পর গুলিতে একজন নিহত হয়েছেন। তার বাবাও গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১৫ মে) গভীর রাতে উপজেলার চরণদ্বীপ ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের খলিল তালুকদার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুই জনকে আটক করেছে। এরা হলেন শওকত ও জসিম। তাদের কাছ থেকে বেশকিছু অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত মো. নাছির (৪৫) চরণদ্বীপ ইউনিয়নের খলিল তালুকদার বাড়ির মুক্তিযোদ্ধা আলী মদনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে নিজ গ্রামে যাকাতের টাকা বিতরণ করছিলেন এক ধনাঢ্য ব্যক্তি। নিহত নাছিরের ছোট ভাই লোকমান ও গ্রেফতারকৃত জসিম জাকাত প্রদানকারীর সঙ্গে ছিলেন। সেখানে লোকমান ও জসিমের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়।

জসিম লোকমানকে ঘুষি মারে। তখন জসিমের বড় ভাই শওকত এবং লোকমানের বাবা-ভাইয়েরা ঘটনাস্থলে আসেন। আবারও মারামারি শুরু হয়। তখন শওকতের গুলিতে নাছির ও তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আলী মদন (৬৫) গুলিবিদ্ধ হন। তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়।

চমেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, ‘রাত ১ টা ৪০ মিনিটে বাবা ও ছেলেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। ছেলেক ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। বাবা চিকিৎসাধীন আছেন।’

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল করিম বলেন, ‘নাছের ও শওকতরা প্রতিবেশি পরিবার। তাদের মধ্যে আধিপত্যের দ্বন্দ্ব পুরনো। প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি, গত (শুক্রবার) রাতে যাকাত বিতরনের সময় ঝগড়া হয় এবং পরে গোলাগুলি হয়েছে এতে একজন নিহত ও আরেকজন আহত হয়েছেন। দুজনকে আটক করেছি। অভিযান চলছে।’

স্থানীয়ভাবে যুবলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত নাছের বোয়ালখালী থানার সাতটি মামলার আসামি বলে পুলিশ জানিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •