দুই মেয়ে ও এক ছেলেকে রেখে কয়েক বছর আগে মারা যান স্বামী। এতে অকূল সাগরে পড়ে যান স্ত্রী। কিন্তু হাল ছাড়েননি এই সংগ্রামী নারী। একটি চায়ের দোকান দিয়ে এতদিন চালিয়ে আসছিলেন তিন সন্তানসহ চারজনের সংসার। ছেলেমেয়েদের লেখা পড়াও করাচ্ছিলেন। … কিন্তু! কিন্তু করোনা থেমে দিলো এই সংগ্রামী নারীর জীবন। করোনায় দুই মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ তার দোকানটি। কিছু জমানো টাকা ছিলো তা দিয়ে খাবারটা কোনো রকম চললেও বাসা ভাড়া দিতে পারেননি দুইমাস। মালিক জানিয়ে দিয়েছেন ভাড়া না দিলে বাসা ছাড়তে। তাই বাধ্য হয়ে তিন ছেলে-মেয়ে সাহায্যের আশায় বের হয়েছিলেন রাজধানীর প্রান্তরে। তবে কোথাও সাহায্য না পেয়ে ভাঙা মনে ফিরছিলো মা এবং ছেলে-মেয়েগুলো। কিন্তু ভাঙ্গা কপাল যাকে বলে- সাহায্যতো পাননি, উল্টো ফেরার পথে মোটর সাইকেলের ধাক্কায় আহত হলো ছেলেটি। আহা এমন কষ্টের মুহূর্ত মানুষের জীবনে আসে? —-এই ছবিটা দেখে মনটা কেঁদে উঠেছে!

আল্লাহ তুমি রহম করো। তোমার করোনাকে তুমি এবার তুলে নাও। তুমি দেখছো না, করোনায় অসহায় মানুষগুলোরই কষ্টের সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে?

ছবি প্রতিবেদন- শাহেদ মিজান

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •