সিবিএন ডেস্ক:
পাঁচ মাসের বেশি সময় ধরে অচলাবস্থা চলার পর অবশেষে নতুন প্রধানমন্ত্রী ও নতুন সরকার নির্বাচনে সক্ষম হলেন ইরাকের আইনপ্রণেতারা। স্থানীয় সময় বুধবার (৬ মে) রাতে ইরাকের পার্লামেন্টে অনুষ্ঠিত আস্থাভোটে মোস্তফা আল কাজেমি’র নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভা জয়লাভ করেছে। তবে মন্ত্রিত্ব প্রার্থীদের কয়েকজন প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় আপাতত পূর্ণ মন্ত্রিসভা ছাড়াই সরকার গঠন করতে হবে কাজেমিকে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

পার্লামেন্ট স্পিকারের সঙ্গে কথা বলছেন কাজেমি (বামে)

২০১৯ সালের ২৯ নভেম্বর আদিল আব্দুল মাহদি প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর পর গত কয়েক মাসে ইরাকে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেয়। এই সময়ের মধ্যে কয়েকজন ব্যক্তিকে মন্ত্রিসভা গঠনের সুযোগ দেওয়া হলেও শেষ পর্যন্ত তারা আস্থাভোটে টিকতে পারেননি। গত ৯ এপ্রিল সাবেক সাংবাদিক ও গোয়েন্দা প্রধান মোস্তফা আল কাজেমিকে মন্ত্রিসভা গঠনের দায়িত্ব দেওয়া হয়। রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে দফায় দফায় শলাপরামর্শের পর তিনি পার্লামেন্টে মন্ত্রীদের তালিকা পেশ করেন।

বুধবার অনুষ্ঠিত ভোটাভুটিতে কাজেমির তালিকায় থাকা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী ও বিদ্যুৎমন্ত্রীও জয়লাভ করেছেন। প্রার্থীদের নিয়ে সমঝোতায় না পৌঁছাতে পারায় তেল ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদে ভোটাভুটি বিলম্বিত করা হয়েছে। এছাড়া কাজেমি মনোনীত আইনমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রী প্রার্থীকে প্রত্যাখ্যান করেছেন আইনপ্রণেতারা।

প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর একটি টুইট করেছেন কাজেমি। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘ইরাকের নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধি নিয়ে কাজ করাটাই আমাদের পন্থা।’

করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলাকে অগ্রাধিকার দেবেন বলে জানিয়েছেন কাজেমি। এছাড়া, সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের যারা হত্যা করেছে তাদেরকেও বিচারের মুখোমুখি করার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

সিবিএন/ইমাম/৭মে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •