শাহেদ মিজান, সিবিএন:
রামুর ৫০ শয্যার করোনা ডেডিকেটড আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন চার রোগী সুস্থ্য হয়েছে। মঙ্গলবার দ্বিতীয়বার নমুনা নেগেটিভ এসেছে তাদের। চার জনের মধ্যে তিনজন মহেশখালীর এবং একজন টেকনাফের। পর্যবেক্ষণের পর শারীরিক অবস্থা ভালো হলেই আজকেই তাদেরকে আনুষ্ঠানিক করোনা মুক্ত ঘোষণা আইসোলেশন সেন্টার থেকে ছাড় দেয়া হতে পারে।
রামু ডেডিকেটড করোনা আইসোলেশন সেন্টার ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া এই তথ্য জানিয়েছেন।
সুস্থ্য হওয়া এই চারজন হলেন, মহেশখালীর হেলাল উদ্দীন, হোসাইন সাব্বি ও অঞ্জলী বালা বড়ুয়া এবং টেকনাফে ইদ্রিস।
তিনি রামু ডেডিকেটড আইসোলেশন সেন্টারে জেলার ২৫জন করোনা রোগী চিকিৎসাথীন রয়েছেন। এর মধ্যে মঙ্গলবার দ্বিতীবার নমুনা পরীক্ষায় চার জনের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। দ্বিতীয়বার রিপোর্ট নেগেটিভ আসা মানে রোগী সুস্থ্য। এতে সুস্থ্য ঘোষণা করে ছাড় দেয়া যায়। চিকিৎসাকালেও তাদের শরীরে মৃদ্যু উপসর্গ পাওয়া যায়।
তবে শারীরিক অবস্থার একটা বিষয় রয়েছে। রিপোর্ট দ্বিতীবার নেগেটিভ আসলেও শারীরিক কোনো সমস্যা থাকলে ছাড় দেয়া যাবে না।
ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া বলেন, এই চার করোনা রোগীকে সুস্থ বিবেচনায় আনা হয়েছে। তবে বিকাল পর্যন্ত তাদের পর্যবেক্ষণ করা হবে। যদি কোনো শারীরিক সমস্যা পাওয়া না পাওয়া যায় তবে সন্ধ্যার দিকে তাদের ছাড় দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।  তারা ছাড় ফেলেও বাড়ি ফিরে ১৪ দিন হোম কোয়ারাইন্টাইনে থাকতে হবে।
উল্লেখ্য, কক্সবাজারের গত ৫ মে পর্যন্ত ৫০ জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছেন। এদের অধিকাংশই বহিঃগমনকারী। তবে স্থানীয় রয়েছেন। রয়েছেন তিন চিকিৎসকও। ৫০ জনের রামুতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। সুস্থ হয়ে বাড়ি বাড়ি ফিরে গেছে মহেশখালীর প্রথম আক্রান্ত তিনজন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •