খলিল চৌধুরী, সৌদি আরব ##
সৌদি আরবে মক্কা-মদিনা ও জেদ্দায় একদিন ব্যবধানে আরও ৮ বাংলাদেশি রেমিটেন্সযোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে।

তারা হলেন- তারেকুল ইসলাম সিকদার, আবুল কাশেম দুলা মিয়া, জাহাঙ্গীর আলম, মোঃ রফিকুল ইসলাম, হাসিবুর রহমান, শামসুল আলম ও মোক্তার আহমদ।

করোনা বিস্তার ঠেকাতে নানা পদক্ষেপ নিলেও মরুর দেশ সৌদি আরবে হুহু করে বেড়ে চলছে করোনা আক্রান্ত সংখ্যা। একই সাথে করোনা ভাইরাস ও হ্নদয়রোগে প্রতিদিন মারা যাচ্ছে সৌদি-প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

মৃত ব্যক্তিদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি:
৪ এপ্রিল ভোর ৪ টায় মক্কার কিং আবদুল আজিজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন তারেকুল ইসলাম সিকদার (৩২) নামের যুবক। তার বাড়ী কক্সবাজার সদর উপজেলার ভারুয়াখালী করিম সিকদারপাড়ায়। তারেকুল ইসলাম সিকদারের পিতার নাম হাজি রমজান আলী সিকদার। ১৯ দিন ধরে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃত্যুর দুইদিন আগে তার করোনা শনাক্ত হয়। মক্কা নগরীতে সুপারশপ ব্যবসা করতেন মরহুম তারেক। তিনি দুই সন্তানের জনক।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মক্কা কিং আবদুল আজিজ হাসপাতাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় আবুল কাসেম দুলা মিয়া (৫৮) মারা যান। তার বাড়ী চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের করাইনগর গ্রামে।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মক্কা নগরীর একটি হাসপাতালে মারা যান মোক্তার আহমদ (৪০)। তার বাড়ি কক্সবাজার জেলার চকরিয়া কাহারিয়াঘোনা ৫ নং ওয়ার্ডে।

হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে মার যান আরেক রেমিটেন্সযোদ্ধা মোঃ রফিকুল ইনলাম (৪৫)। তার বাড়ী কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায়।

মদিনা ওহুদ হাসপাতালে চিকিৎসা অবস্থায় মারা যান মোহাম্মদ শামসুল আলম (৫০)। তিনি কক্সবাজার জেলার মেহেশখালী উপজেলার ছোট মেহেশখালীর সিপাহী পাড়ার আবুল বশর’র পুত্র।

মদিনা একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা উপসর্গে নিয়ে মারা যান হাসিবুর রহমান। তার গ্রামের বাড়ী লক্ষীপুর জেলায়।

করোনায় মদিনার হেলেথ মিনিস্টার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আবুল কাসেম, তার বাড়ী কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোটা উপজেলার আলিপুর গ্রামে।

সৌদি আরবে করোনায় নতুন করে আক্রান্ত সংখ্যা-১৫৯৫ জন।
৫ এপ্রিল সবশেষ তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় সৌদি আরবে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৯৫জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩০২৫১জন। মারা গেছে ৯জন, এই নিয়ে দেশটিতে মৃত্যের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০০জনে। সুস্থ হয়েছেন ৯৫৫জন, দেশটিতে সর্বমোট সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৫৪৩১জন। -খবরটি নিশ্চিত করেছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •