পিএমখালীতে বয়স্ক ও বিধবা ভাতা নিতে ২ হাজার টাকা করে নেওয়া বিষয়ে এক বিবৃতি দিয়েছেন ডিককুল এলাকার শাহজাহান। তিনি গনমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলেন,-

আমি মোঃ শাহজাহান পিতা নাজির সওদাগর সাং দক্ষিণ ডিককুল পিএমখালী। আমি দীর্ঘ বছর ধরে সৌদি আরবে থাকি প্রায় ৪ মাস আগে দেশে ছুটিতে এসেছি। আমি দেশের নিয়ম কানুন সম্পর্কেতত বেশি অবগত নই। কিছু দিন আগে আবদুর রশিদ মাস্টার প্রকাশ রশিদ মাস্টার আমার কাছে এসে বলে এলাকার গরীব অসহায় মহিলা থাকলে তাদের আইডি কার্ড নিয়ে তাদের নাম বিধবা এবং বয়স্ক ভাতার তালিকায় দিবে এতে তারা প্রতি মাসে অনেক টাকা পাবে। কিন্তু তার বিপরীতে রশিদ মাস্টারকে ২৫০০ টাকা করে দিতে হবে। আমি সরল বিশ্বাসে গরীব মানুষের উপকারের কথা চিন্তা করে কয়েকজন থেকে ২ হাজার টাকা করে নিয়ে আইডি কার্ড সহ রশিদ মাস্টারকে দিয়েছি। কিন্তু পরে বিষয়টি জানাজানি হলে আমি বুঝতে পারি রশিদ মাস্টার আমাকে ব্যবহার করে সম্পূর্ন প্রতারণা করেছে। পরে পিএমখালী ইউনিয়নের সম্মানীত চেয়ারম্যান জনাব আবদুর রহিম মাস্টার এসে আমাদের সামনা সামনি করে সব টাকা যাদের কাছ থেকে নেওয়া হয়েছে তাদের ফেরত দেওয়ার ব্যবস্থা করে।

সত্যি কথা হচ্ছে আমি প্রবাসে থাকি তাই ভালমন্দ যাচাই না করে সরল রশিদ মাস্টারকে বিশ্বাস করে মানুষের উপকার করতে চেয়েছিলাম। সবাই খোঁজ নিলে জানতে পারবে আমাদের পারিবারিক এবং সামাজিক অবস্থা সর্ম্পকে কারো কাছ থেকে টাকা নিয়ে খাওয়ার মত অবস্থা আমাদের নেই বরং প্রতি মাসে বিপুল টাকা আমরা দান করি। যাই হওক আমি অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য ক্ষমাপ্রার্থী এবং উক্ত বিষয়ে আর কোন ভুলবুঝাবুঝির অবকাশ না রাখার জন্য প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি বিনীত আহবান করছি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •