মিছবাহ উদ্দিন, ঈদগাঁও:
ঈদগাঁওকে করোনা মুক্ত রাখতে ইউনিয়ন ভিত্তিক করোনা টেস্ট করা দরকার বলে মনে করছেন বিশিষ্টজনরা। অন্যতায় করোনা রোগী আছে কিনা প্রশ্নের উত্তর পাওয়া কঠিন হবে বলে মনে করছেন তারা। কেননা অনেক রোগীর উপসর্গ ছাড়াই শনাক্ত হচ্ছে বিভিন্ন জেলা-উপজেলায়।

এদিকে ঈদগাঁওতে অধিকাংশ মানুষের সর্দি, জ্বর, কাশি হওয়ার পরেও ভয়ে করোনা পরিক্ষার জন্যে আগ্রহ প্রকাশ করছে না বলে জানাগেছে। যেটা ঋতু পরিবর্তনের কারণে হচ্ছে বলে ধারণা তাদের। সুতরাং প্রতিটি ওয়ার্ড অথবা ইউনিয়ন ভিত্তিক তালিকা করে প্রতিদিন টেস্টের আওতায় আনলে বিষয়টি ক্লিয়ার হবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। যদিও  এখনো করোনা মুক্ত এলাকা। কিন্তু অন্যান্য উপজেলার মতো ঈদগাঁওতেও ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও সাতক্ষীরা সহ বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন পেশার লোকজনের যাতায়াত রয়েছে। তাই অনেকের মনে সন্দেহ রয়ে গেছে আসলে গোপনে করোনা ছড়িয়ে পড়ছে কিনা?

এদিকে ঈদগাঁওতে কর্মরত সাংবাদিকদের সচেতনতামূলক প্রচারণা ও ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে কিছুটা নিরাপদে রয়েছে ঈদগাহবাসী যা অস্বীকার করা যাবে না। কিন্তু আমরা ব্যক্তিগত ভাবে যতদিন সতর্ক হবো না, ততোদিন করোনার ঝুঁকি পরিপূর্ণ এড়ানো সম্ভব নয়। সুতরাং আসুন সতর্ক থেকে নিজে বাঁচি, দেশকে বাঁচাতে সহযোগিতা করি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •