শাহেদ মিজান, সিবিএন:

একদিনেই তাদের তিনজনের পজেটিভ রিপোর্ট আসার মাধ্যমেই মহেশখালীতে প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছিলো। আশঙ্কার বিষয় হলো এরপর আরো ৭জনসহ মোট ১০ করোনা সনাক্ত এই উপজেলায়। তবে আশার কথা হলো প্রথম দফায় সনাক্ত এই তিনজনকে করোনা মুক্ত ঘোষণা দিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

নিয়ম মতে, সনাক্ত হওয়ার পর স্বাস্থ্যের উন্নতি এবং তিনবারের পরীক্ষায় নমুনা নেগেটিভ এসেছে তাদের। তাই তাদেরকে আজ শনিবার ৫বিকাল সাড়ে টার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা মুক্ত ঘোষণা করে বাড়ি যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে তাদেরকে আরো ১৪ দিন হোম কোয়ারাইন্টাইনে থাকতে হবে। মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহফুজুল হক এই তথ্য জানান।

ডা. মোহাম্মদ মাহফুজুল হক জানান, গত ১৯ এপ্রিল নমুনা পরীক্ষায় মহেশখালী উপজেলায় প্রথম তিনজনের শরীরে করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়েছিলো। তিনজনের মধ্যে শাপলাপুরের দুইজনকে মহেশখালী লিডারশীপ কলেজের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসা দেয়া হয়। বড়মহেশখালীর গৃহবধূকে তার বাড়িতে আইসোলেশন নিয়মানুযায়ী সার্বিক তত্ত¡াবধানের মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়া হয়।

তিনি জানান, নিয়মানুযায়ী গত ২৭ এপ্রিল দ্বিতীয় বার নমুনা পরীক্ষা তাদের তিনজনের নেগেটিভ রিপোর্ট আসে। ৩০ এপ্রিল তৃতীয়বার নমুনা পরীক্ষায় তিনজনের রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ । করোনা সাস্থ্য বিধি মতে, আক্রান্ত রোগীর তিনবার নেগেটিভ রিপোর্ট আসলে তাকে সুস্থ ধরা হয়। তাই তাদেরকে করোনা মুক্ত ঘোষনা করে হাসপাতাল থেকে ছাড় দেয়া হয়েছে।

শাপলাপুরের দুইজনকে মহেশখালী লিডারশীপ কলেজের আইসোলেশন সেন্টার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ছাড় দেয়া হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জামিরুল ইসলাম ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মাহফুজুল হকসহ সংশ্লিষ্টরা।

কক্সবাজারের সিভিল সার্জন মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, মহেশখালীতে প্রথম ধাপে করোনা সনাক্ত তিনজনকে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। যে দুইজন আইসোলেশন সেন্টারে ছিলো তাদেরকে বাড়িয়ে পাঠিয়ে দেয়ো হয়েছে এবং বাড়িতে আইসোলেশনে থাকামহিলাও আইসোশেন মুক্ত হলো। তবে তাদেরকে আরো ১৪ দিন হোম কোয়ারাইন্টাইনে থাকতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •