চকরিয়া প্রতিনিধি :

পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রান কমিটি সংশোধন করে বাদ দেওয়া হয়েছে করোনা সংক্রমণে সাধারণ মানুষের পাশে থাকা রাজনৈতিক কর্মী পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য নাছির উদ্দীন বাদশাাকে। গত ২৭ এপ্রিল জেলা আওয়ামীলীগের সংশোধিত ঘোষিত কমিটিতে বাদশাকে বাদ দিয়ে যুক্ত করা হয়েছে তৌহিদুল ইসলাম তোহা নামের একজনকে।

জানা গেছে, বাদ পড়া নাছির উদ্দীন বাদশা পেকুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ও সহ সভাপতি এবং জোটসরকার শাসন আমলে সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন এছাডা পেকুয়া উত্তর মেহেরনামা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলার শ্রেষ্ঠ এসএমসির নির্বাচিত সভাপতি।

পেকুয়া আওয়ামীলীগের নিবেদিত ও ত্যাগী কর্মী নাছির উদ্দিন বাদশা গত ৫৩ দিন উপজেলার বিভিন্ন জনপদে করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন ঘরবন্দী মানুষের পাশে থেকেছেন খবর নিয়েছেন, ব্যক্তিগত তরফ থেকে সাধ্যমতো খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছেন। যিনি রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে করোনা যুদ্ধে মাঠে রয়েছেন।

তাকে হঠাৎ করে পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রান কমিটি সংশোধন করে বাদ দেওয়া মানে নেতৃত্বকে হত্যা ছাড়া আর কিছু নয় বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। তাঁরস্থলে যাকে ত্রান কমিটিতে স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছে তিনি ও পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য, থাকেন কক্সবাজারে।

উল্লেখিত ত্রান কমিটিতে স্থাপন পেয়েছেন বিদেশ ফেরত মেহের আলী যিনি কোনদিন পেকুয়ার রাজনৈতিক ময়দানে আওয়ামিলীগের একদিনের জন্য রাজনীতিতে ছিলেননা। ডাক্তার প্রদীপ শীল পেশায় পল্লীডাক্তার আওয়ামী গরানার হলেও প্রকাশ্যে রাজনীতি করে না। উপজেলা যুবলীগ থেকে তিনজন কমিটিতে স্থাপন পেয়েছেন। তার মাঝে জিয়াবুল হক জিকু যিনি পদত্যাগপ্রাপ্ত সহ সভাপতি, বর্তমানে যুবলীগে তাঁর পদবী নেই। এডভোকেট রাশেদুল কবির হল এডভোকেট কামাল হোসেন সাহেবের সন্তান হিসেবে স্থান পেয়েছেন। আর নাজেম উদ্দিন চৌধুরী বর্তমানে শারীরিকভাবে অবস হয়ে চট্টগ্রাম শহরে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পক্ষান্তরে নাছির উদ্দীন বাদশা নিজ উদ্যাোগে পেকুয়ার মেহেরনামা আবাসন প্রকল্পের আড়াই শতাধিক পরিবার এবং শীলখালীর কসাই পাডা ও শীলপাডার শতাধিক মছন্যাকাটা ও আধাখালী এলাকায় শতাধিক পরিবারের মাঝে ত্রান বিতরন করেছেন।

নাছির উদ্দিন বাদশা গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। ষড়যন্ত্রে প্রার্থীতা বাতিল হলে মহামান্য হাইকোর্টের মামলায় প্রাথীতা ফিরে পেয়ে নির্বাচনের তিনদিন পূর্বে মাঠে নেমে প্রমান করেছিলেন তিনি জনতার নেতা, অনেক ভোট পেয়েছিলেন যা পেকুয়াবাসী জানে।

স্থানীয় সচেতন মহলে প্রশ্ন উঠেছে, নাছির উদ্দিন বাদশার মতো একজন স্বচ্ছ প্রতিবাদী ও অসহায় জনতার পাশে থাকা রাজনৈতিক কর্মীকে হঠাৎ করে কমিটি সংশোধন করে বাদ দেওয়া মানে রাজনৈতিক নেতৃত্বকে হত্যা করার সামিল।

এদিকে অবিলম্বে ত্রান কমিটিতে অযোগ্যদের বাদ দিয়ে আওয়ামীলীগের ত্যাগী ও পরিচ্ছন্ন নেতৃত্ব যথাক্রমে নাছির উদ্দীন বাদশা, মুফিজুর রহমান, শহীদুল ইসলাম চৌধুরী চেয়ারম্যান, সাবেক ছাত্রনেতা ফরহাদ ইকবাল, আবুল শামা শামীম, কাজিউল ইনসান, বশির আহমদ, আবু তালেব, মাষ্টার নুর মোহাম্মদ, জাকির আহমদ, পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির ৩১ সদস্য হতে অন্তর্ভুক্ত করে কমিটি সংশোধন করার জন্য কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •