রায়হান আজাদ

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও মুসলিম উম্মাহর ঘরে ঘরে রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের পয়গাম নিয়ে হাজির হয়েছে রমজান। এ মাসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য সম্পর্কে কুরআনুল কারীম ও হাদীসে রসূলে বিস্তারিত আলোচনা রয়েছে। এ মাসে প্রত্যেক প্রাপ্ত বয়স্ক ও সুস্থ মুসলিম নর-নারীর জন্য রোজা পালন করা ফরজে আইন-অবশ্য কর্তব্য। রোজা ইসলামের তৃতীয় স্তম্ভ। রোজা হচ্ছে সোবহি সাদিক হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ইসলামী শরীয়তের বিধান মোতাবেক যাবতীয় আহার, পানাহার ও স্বামী-স্ত্রীর যৌনাচার থেকে নিয়্যত সহকারে বিরত থাকা। আল্লাহ পাক রোজার হকুম সম্পর্কে আল কোরআনে ইরশাদ করেন,“হে ঈমানদারগণ! তোমাদের প্রতি সিয়াম সাধনা ফরজ করা হলো যেভাবে ফরজ করা হয় তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর; উদ্দেশ্য হলো তোমরা তাকওয়ার নীতি অবলম্বন করবে”। সুরা বাকারা ঃ ১৮৩।

রমজান শুরুর প্রথম দিকে এ মাসের গুরুত্ব ও বরকত ফুটিয়ে তুলে রাসুলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাহাবীদের উদ্দেশ্যে ইরশাদ করেন, “তোমাদের উপর এমন এক মহান মর্যাদা ও বরকতপূর্ণ মাস আসছে যাতে এমন একটি রাত রয়েছে যা হাজার মাস থেকে উত্তম। আল্লাহ তা‘য়ালা এ মাসের দিবাভাগে উপবাস ফরজ করে দিয়েছেন আর রাত্রি জাগরণ তথা সালাতুত তারাবীহকে সুন্নাত করে দিয়েছেন। আর যে ব্যক্তি এ মাসে সানন্দে স্বেচ্ছায় কোন একটি নেক আমল করবে সে অন্য মাসে ফরজ আদায়ের সাওয়াব হাছিল করবে আর যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করবে আল্লাহ পাক তাকে অন্য মাসে ৭০টি ফরজ আদায় করার সমতুল্য সাওয়াব দান করবেন”। (মেশকাত শরীফ) মহানবী আরো বলেছেন, “যখন রমজান মাস আসে তখন জান্নাতের দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজাসমূহ বন্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তানকে শৃংখলিত করে রাখা হয়। ইমাম তিরমিযীর বর্ণনায় উল্লেখিত হাদীসটির শেষাংশে আরো যোগ করা হয়েছে,‘একজন ফিরিশতা রমজানে ডেকে বলে: হে কল্যাণ অন্বেষু ! তুমি এগিয়ে যাও আর হে অনিষ্টচারী! তুমি নিবৃত্ত হও। এভাবে শেষ রমজান পর্যন্ত চলতে থাকে। (বুখারী ও মুসলিম)

মাহে রমজানে মহাগ্রন্থ আল কুরআনসহ সকল আসমানী গ্রন্থ ও ছহীফা নাযিল হয়। যাকাত-ওশর,দান-ছাদকা, ছবর, সহানুভূতি ও সহমর্মিতা প্রদর্শনের মাধ্যমে আত্মশুদ্ধি অর্জন সম্ভব হয় এ মাসে। তাসবীহ,তাহলীল,দু‘আ-দরুদ ও গভীর মুনাজাতে আত্মবিলীন হয়ে এ পবিত্র মাসে রোজাদার আল্লাহ পাকের সান্নিধ্য লাভ করে। তাই রাসুলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ মাসে নিজেও বেশী বেশী ইবাদত করতেন এবং সাহাবীদেরকেও কোমর বেঁধে ইবাদতের জন্য উৎসাহ যুগাতেন। তাই আসুন, ঈমান-আমলে বলিয়ান হয়ে যথাযথ গুরুত্বের সাথে মাসব্যাপী সিয়াম সাধনায় ব্রতী হই।

এ পবিত্র রমজানে চলমান করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রেহাই পেতে বেশী বেশী ইসতিগফার ও দরুদ শরীফ পড়া সমীচীন হবে। কারণ, কুরআনুল কারীম ও হাদীসে রসূলে আছে, ক্ষমা প্রার্থনাকালিন সময়ে আল্লাহর আযাব আপতিত হয় না আর দরুদ শরীফ পাঠে বান্দার উপর আল্লাহর রহমত বর্ষিত হয়।

আয় আল্লাহ পরওয়ারদেগার! এ বৈশাখ মাসে সিয়াম সাধনায় আমাদেরকে শারীরিক ও মানসিক শক্তি দান করুন আর আমাদের থেকে সবধরণের দুনিয়াবী ও আসমানী বালা-মুসিবত উঠিয়ে নিন। আমিন।

 

লেখক: সহকারি অধ্যাপক, ইসলামিক স্টাডিজ ডিপার্টমেন্ট , কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, কলাতলী, কক্সাবাজার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •