পেকুয়া প্রতিনিধি :

করোনার ভয়াল থাবায় থমকে গেছে সারা বিশ্বে। দেশে দেশে চলছে লকডাউন। সবাইকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এ প্রেক্ষাপটে জীবিকা বন্ধ হয়ে চরম খাদ্য সংকটে পড়েছে নিম্নবিত্ত পরিবারের মানুষ। তার উপর কালবৈশাখী ঝড়ে ঘর হারিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের টেকপাড়া গ্রামের চারটি পরিবার। কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবের কাছে ঘর হারিয়ে তাঁরা এখন বসবাস করছে খোলা আকাশের নিচে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিন দেখা যায়, চারপাশে চারটি বেড়া দিয়ে খোলা আকাশের নিচে পরিবার নিয়ে দিনযাপন করছেন দিনমজুর নাজেম উদ্দিন। দিনে এনে দিনে খাওয়া নাজেম উদ্দিনের সামর্থ্য না থাকায় চার শিশু সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে চরম মানবেতরভাবে দিনযাপনে বাধ্য হয়েছেন।

একইভাবে পরিবার নিয়ে খোলা আকাশের নিচে দিনযাপন করছেন একই এলাকার মৃত আকবর আহমদের স্ত্রী খালেদা বেগম, নাজুর স্ত্রী হাসিনা ও আকবর আহমদ ছেলে মহি উদ্দিনের পরিবার। হতদরিদ্র এসব পরিবার বর্তমানে চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছেন।

পেকুয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের নারী সদস্য বুলবুল জান্নাত বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে মাত্র ত্রিশ মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়ে এ চারটি পরিবারের ঘর পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে যায়। এ অবস্থায় দিনে এনে দিনে খাওয়া পরিবারগুলো চরম সমস্যায় পড়েছেন। মাথা গোঁজার ঠাঁই হারানোর পাশাপাশি প্রতিটি পরিবারের মজুদ খাদ্যসামগ্রী বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। এখনি জরুরীভাবে তাঁদের সরকারী সহায়তা প্রয়োজন।

ভুক্তভোগী খালেদা বেগম বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে প্রচণ্ড ঝড়ে মুহুর্তেই উড়ে যায় আমাদের বাড়ির ছাউনি। এতে আতংকিত হয়ে প্রাণ বাঁচাতে ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় ভয়ে বাইরে বেরোতে গিয়ে আমি আহত হই। বর্তমানে আমরা খুব অসহায় অবস্থায় আছি।

এব্যাপারে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাঈকা সাহাদাত বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোকে সরকারী সহায়তা দেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •