মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার শহরের টেকপাড়ার করোনা রোগীকে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেসন হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেওয়া হয়েছে। বুধবার ২২ এপ্রিল রাত ৮ টার দিকে তাকে ভর্তি করানো হয়। তার আগে আইওএম এর একটি এ্যাম্বুলেন্সে করে টেকপাড়ার করোনা রোগীকে সে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বিষয়টি রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া সিবিএন-কে জানিয়েছেন।

রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া সিবিএন-কে আরো জানান, রোগীকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা দেওয়া দেওয়া শুরু হয়েছে। রোগীর কাছ থেকে তার গত একমাসের চলাফেরার যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ ও রোগের বিবরণ জেনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সাথে পরামর্শ করে আরো তাকে আরো অধিকতর স্বাস্থ্য সেবা দেওয়া হবে বলে ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া জানান।

রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন একটি ভবনে ৫০ শয্যার একটি আইসোলেসন ইউনিট আগে থেকেই করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করা রাখা হয়েছে। ভর্তি হওয়া টেকপাড়ার করোনা রোগী হচ্ছে রামু আইসোলেন হাসপাতালের প্রথম রোগী।

এর আগে একইদিন বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে করোনা রোগীর বাড়িটি লকডাউন (Lockdown) করে দেওয়া হয়। উক্ত করোনা রোগীর ২ মেয়ে রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে এনজিও ওয়ার্ল্ড ভিশন (World Vision) এ চাকুরী করে।

কক্সবাজার সদর উপজেলার ইউএনও মু. মাহমুদ উল্লাহ মারুফ এর নেতৃত্বে কক্সবাজার সদর উপজেলা স্বাস্থ্য টিম গিয়ে বুধবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে কক্সবাজার পৌরসভার ৪ নাম্বার ওয়ার্ডের টেকপাড়া চৌমুহনী সংলগ্ন পশ্চিম পার্শ্বে টেকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রোডের করোনা রোগীর বাড়িটি লাল পতাকা উড়িয়ে লকডাউন (Lockdown) করে দেন। এসময় কক্সবাজার সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলী আহসান, কক্সবাজার পৌরসভার ৪ নাম্বার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দিদারুল আলম রুবেল সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

গত ২০ এপ্রিল উক্ত করোনা রোগী নারায়ণগঞ্জ থেকে কক্সবাজার এসেছেন। তিনি মৃত এজাহার আহমদের পুত্র আবুল কালাম (৫৫)। কক্সবাজার থেকে নারায়ণগঞ্জে মাছ নিয়ে সেখানে তিনি ব্যবসা করেন।

বুধবার ২২ এপ্রিল কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৬৪ জনের স্যাম্পল টেস্টের মধ্যে আবুল কালামের স্যাম্পল টেস্টে করোনা ভাইরাস জীবাণু ধরা পড়ে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •