নিজস্ব প্রতিবেদক :
কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের ঝাপুয়ায় পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় একই পরিবারের নারীসহ ৩ জন গুরুতর আহত হয়েছে। ২১ এপ্রিল দুপুরে কালারমারছড়া ইউনিয়নের ঝাপুয়া মারাক্কাঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় ২২ এপ্রিল দুপুরে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আহত ফাতেমা বেগম বাদী হয়ে মহেশখালী থানায় এজাহার দায়ের করে।

এজাহার সূত্রে জানাগেছে, কালারমারছড়া ইউনিয়নের ঝাপুয়া মারাক্কাঘোনা এলাকার মৃত করিমদাদ এর পুত্র মোহাম্মদ ইসলামের কাছ থেকে লবণের মাঠ ও চিংড়ী ঘোনার লাগিয়ত বাবৎ ৬৮ হাজার টাকা পাওয়া রয়েছে একই এলাকার মোহাম্মদ রশিদ। রশিদ মানসিক রোগি হওয়ায় তার জায়গা-জমি দেখভাল করে স্ত্রী ফাতেমা বেগম। মোহাম্মদ ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে উক্ত পাওনা টাকা পরিশোধ না করায় নিরুপায় হয়ে বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে অবগত করে ফাতেমা বেগম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোহাম্মদ ইসলামের নেতৃত্বে তারেক, মিজানুর রহমান ও রওজাত আরা বেগমসহ ৫/৬ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে মোহাম্মদ রশিদের বসত ঘরে ব্যাপক হামলা চালায়। এতে বাঁধা দিলে রশিদের স্ত্রী ফাতেমা বেগম ছেলে আরিফ ও মেয়ে লিজা আক্তারকে দা ও লোহার রড় দিয়ে বেপরোয়া মারধর করে। পরে আশেপাশের লোকজন চিৎকার শুনে এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। ওই সময় দুর্বৃত্তরা ঘরে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটে নেয়। এ নিয়ে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সাইদুল ইসলাম ও সাইফুল ইসলাম জানায়, পাওয়া টাকার জের ধরে মোহাম্মদ রশিদের পরিবারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে। তারা এ ঘটনায় দোষীদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবী জানায়। উল্লেখ্য গত মাসখানিক পূর্বে ইসলাম কৌশলে মানসিক রোগি রশিদের মালিকানাধীন ২০ শতক জমি কৌশলে বিক্রি করে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়েছিলো যা তার পরিবার জানতো না বলে জানাগেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •