নিউজ ডেস্ক:

ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির ও আল-জামিআতুল দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর শারীরিক অবস্থা অনেকটা উন্নতি হয়েছে। তিনি বর্তমানে শঙ্কামুক্ত।

রোববার (১৯ এপ্রিল) বিকেল ৪টার দিকে মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে এমনটা নিশ্চিত করেন আল্লাম শফীর ছোট ছেলে ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানী।

তিনি বলেন, হুজুরকে (আল্লামা শফী) নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে। মূলত ফুসফুসের সংক্রমণজনিত রোগে কারণে উনাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।

হেফাজত আমিরের শারীরিক সুস্থতায় জন্য ছাত্র, খালিফা, ভক্ত, মুরিদান ও দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে তা ব্যক্তিগত সহকারী মাওলানা শফিউল আলম বলেন, হুজুরের আইসিইউ সাপোর্ট প্রয়োজন না হলেও সার্বক্ষণিক নিরাপত্ততার জন্য চিকিৎসদের পরামর্শে রাখা হয়েছে। তিনি আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থ ও স্বাভাবিক রয়েছেন।

গত ১৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে চট্টগ্রাম থেকে তাকে ঢাকার গেন্ডারিয়ার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অধ্যাপক ডা. মতিউর ইসলামের তত্ত্বাবধানে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের মেডিকেল বোর্ডের মাধ্যমে তার চিকিৎসা সেবা চলছে।

এর আগে গত ১১ এপ্রিল বিকেলে বমি, মাথা ব্যথা, শ্বাসকষ্ট এবং বার্ধক্যজনিত শারীরিক দুর্বলতাসহ নানা সমস্যা নিয়ে আল্লামা শফী চট্টগ্রামের প্রবর্তক মোড়ের বেসরকারি হাসপাতাল সিএসসিআরে ভর্তি হন।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আল্লামা শফীর মৃত্যুর গুজব ছড়াচ্ছে একটি মহল। এসব গুজব তথা মৃত্যুর বিষয়টি সঠিক নয়। এছাড়া গুজব না ছড়াতে এবং গুজবে কান না দেয়ারও জন্য মাওলানা আনাস মাদানী আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত, আল্লামা শফীর বয়স ১০৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত দুর্বলতার পাশাপাশি তিনি
ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, শ্বাসকষ্ট এবং হজমজনিত সমস্যায় ভুগছেন। বার্ধক্যের কারণে এসব রোগ
দিনদিন অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়ে। ফলে তাকে ঘন ঘন হাসপাতালে ভর্তিও হতে হচ্ছে। চলতি বছরে এর আগেও কয়েক দফা অসুস্থ হয়ে তিনি বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •