বিশেষ প্রতিবেদক :

কক্সবাজার সদরের খরুলিয়াস্থ পাম্পের পাশে জাফর কোম্পানীর বাসার সামনে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫ জন আহত হয়েছে। আহতরা হলেন, ঝিলংজা ৭ নং ওয়ার্ডের মকবুল সওদাগর পাড়ার বাসিন্দা আলী আহমদ, তার স্ত্রী লালমতি বেগম, মেয়ে পারভীন, ছেলে শাহজান ও ভাতিজা জাহাঙ্গীর। শনিবার (১৮এপ্রিল) রাত ৮ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, চলাচলের রাস্তার বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের খুইল্ল্যামিয়ার ছেলে রাসেল, আবদুস সালাম, ছৈয়দ হোসেন, মোঃ হোসেন, সাইফুল, রহিম, তার নাতী জামাই ইব্রাহিম, ভাতিজা নুরুল ইসলাম ও নুরুল ইসলাম সহ আরো ৭/৮ জন লোক একত্রিত হয়ে অতর্কিতভাবে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আলী আহমদের পরিবারের উপর হামলা চালায়। এতে আলী আহমদের পরিবারের ৫ সদস্য গুরুতর আহত হয়। এলাকাবাসী তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে আহতদের রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় প্রতিবেশি ও স্বজনরা।

আহতদের স্বজন আবদুস সালাম জানান, চলাচলের রাস্তার ছোট একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে হামলাকারীরা আমার পরিবারের ৫ জনকে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করে। আহতদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করাই। বিষয়টি স্থানীয় মেম্বার সলিমুল হকের কাছে বিচারাধীন আছে। এরই মধ্যে তারা অতর্কিতভাবে আমাদের উপর হামলা চালায়।

হামলাকারীপক্ষ বাজারঘাটাস্থ রামু ক্রোকারিজ ও ভোলা বাবুর পেট্রোলপাম্প এলাকার রামু মেডিকোর সত্ত্বাধিকারী বলে জানিয়ে ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানাচ্ছি।

এদিকে, আমাদের পরিবারের ৫ সদস্য ঘটনায় হামলার শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেও উল্টো হামলাকারীরা পুলিশ নিয়ে আমাদের পরিবারের অন্যান্য সদস্যকে হয়রানী করছে বলে জানান আহতদের স্বজন আবদুস সালাম।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি অপারেশন মাসুম খান জানান, এরকম একটি ঘটনা হয়েছে শুনে ঘটনাস্থল পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে কেউ থানায় এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইননানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •