মিজবাউল হক, চকরিয়া :

ইভটিজিংয়ে বাধা দেয়ায় শোয়াইবুল ইসলাম (৩৫) নামের এক মাদ্রাসা সুপারের উপর হামলা করেছে সন্ত্রাসীরা। এসময় তাদের হামলায় আরও ৫ জন কমবেশি আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে উপজেলা বিএমচর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে বহদ্দারকাটা পানীরনাল এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় লোকজন জানান, মাওলানা শোয়াইবুল ইসলাম কোনাখালী ইউনিয়নের পুরুত্যাখালী আল আমিন হাশেমীয় সুন্নীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন। করোনাভাইরাস প্রার্দুভাবের কারণে মাদ্রাসা বন্ধ থাকায় বেশক’দিন তার গ্রামের বাড়ি বিএমচর ইউনিয়নের বহদ্দারকাটা এলাকায় অবস্থান করেছিলেন। তিনি শুক্রবার রাত ৯টার দিকে বাড়ির সামনে হাটাচলা করছিলো। ওইসময় একই এলাকার বখাটে যুবক মামুন (৩৫), আরিফ (২৬) ও ইলিয়াছ (২২) স্থানীয় একনারীকে ইভটিজিং করে। ইভটিজিংয়ের বিষয়টি শোয়াইবুল ইসলামকে অবহিত করলে তাদের বাধা দেয়ার চেষ্ঠা করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বখাটেরা মাদ্রাসা সুপারের উপর দা ও কিরিচ দিয়ে কুপাতে থাকে। মারাত্মকভাবে আহত হয় শোয়াইব। ওইসময় শোয়াইব চিৎকার দিলে তার স্বজনরা এগিয়ে আসলে তাদেরও হামলা চালায় বখাটেরা। বখাটেদের হামলায় আহত হন শফিকুল ইসলাম (২৮), আবদুল মান্নান (২২) ও দস্তগীর (৩৪) সহ ৫ব্যক্তি। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। হামলার ঘটনায় বখাটেদের বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় মামলা করা হবে বলে জানিয়েছেন আহত মাদ্রাসা সুপারের স্বজনরা। বর্তমানে আহতরা চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে শোয়াইবুল ইসলামের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। এঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •